× প্রচ্ছদ পাবনা-৪ উপনির্বাচন ঈশ্বরদী পাবনা জাতীয় রাজনীতি আন্তর্জাতিক শিক্ষাজ্ঞন বিনোদন খেলাধূলা বিজ্ঞান-প্রযুক্তি নির্বাচন কলাম ছবি ভিডিও রূপপুর এনপিপি
Smiley face করোনা ঈশ্বরদী পাবনা বাংলাদেশ আন্তর্জাতিক খেলা প্রযুক্তি বিনোদন শিক্ষা



পাকশীর ঐতিহ্য রক্ষায় ঢাকার শাহাবাগে মানববন্ধন ও সভা


 

ইতিহাস টুয়েন্টিফোর প্রতিবেদকঃ 
ঈশ্বরদী উপজেলার ঐতিহ্যসমৃদ্ধ জনপদ পাকশীর শতবর্ষী গাছ আর ঐতিহ্য রক্ষায় ঢাকায় মানববন্ধন ও সভা করেছেন ঢাকায় বসবাসরত পাকশীবাসী
শুক্রবার (৮ ফেব্রুয়ারী) বিকেলে ঢাকার শাহবাগে পাবলিক লাইব্রেরী চত্বরে এই কর্মসূচীর আয়োজন করে ড্রীম পাকশী নামের একটি স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন
জানা গেছে, পাকশীর শতবর্ষী বৃক্ষগুলো কাটার জন্য লাল রং দিয়ে ক্রস চিহ্নিত করেছে রেলওয়ে কর্তৃপক্ষ এছাড়া পাকশী রেলওয়ে বাজার ও হাসপাতালের সামনের এলাকাসহ প্রায় ৭০৬ একর জমি অধিগ্রহণ করা হবে বলে ঘোষণাও দেয়া হয়েছে চলমান রূপপুর পারমাণবিক বিদ্যুৎকেন্দ্র প্রকল্পের নিরাপত্তারজন্য এই অধিগ্রহণ পরিকল্পনা করা হচ্ছে
এসব কারণে শঙ্কিত স্থানীয় মানুষ নানাভাবে প্রতিবাদ জানিয়ে আসছেনসভায় বক্তারা  পাকশীতে যুগ যুগ ধরে বসবাস করে আসা ঘরবাড়ি, শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান, দোকানপাট, ব্যবসা-প্রতিষ্ঠান উচ্ছেদ করে রূপপুর পারমাণবিক বিদ্যুৎ প্রকল্পের করা জমি অধিগ্রহন বন্ধের দাবি জানান
বক্তারা বলেন, পাকশীর রেলওয়েতে কর্মরত থাকায় ব্রিটিশ আমল থেকে রেলওয়ের জমিতে তাঁরা মেরিনপাড়া, হাসপাতাল এলাকা,বাবুপাড়া, ব্র্যাকপাড়া, এমএস কলোনি, বেলতলা এমএস কলোনী সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়, রেলওয়ে সরকারী বালিকা বিদ্যালয়সহ আশেপাশের এলাকায় বসবাস করছেনকিন্তু রূপপুর পারমাণবিক শক্তি প্রকল্পের জন্য এসব এলাকার বসতবাড়ি, ব্যবসা প্রতিষ্ঠান, শিক্ষা প্রতিষ্ঠানসহ যাবতীয় অবকাঠামো উচ্ছেদ করে ভূমি দখলের কার্যক্রম শুরু করা হয়েছেএভাবে তাঁদের উচ্ছেদ করা হলে প্রায় ২০ হাজার মানুষ উদ্বাস্তু হয়ে যাবেঅসহায় হয়ে পড়বে এই এলাকার সর্বস্তরের মানুষ
তাই এসব এলাকা থেকে তাদের উচ্ছেদ না করে রেলওয়ের অন্যান্য অনেক পতিত জমি রয়েছে, সেগুলো  রুপপুর প্রকল্পে দেয়ার দাবী জানান তাঁরা
বক্তারা আরও বলেনপাকশীতে শত বছরের পুরনো প্রায় এক হাজার বিশালাকৃতির বৃক্ষ রয়েছে  পুরো একটি শতকের স্মৃতির স্মারক এসব গাছএ ছাড়া আরও হাজার খানেক নানা প্রজাতির গাছ রয়েছে বিভিন্ন সময়েএসব গাছ কেটে ফেললে  শুধু ঐতিহ্য-ইতিহাস নয়, শুধু পরিবেশ নয়- পাকশীর জনবসতিও বিপন্নের আশংকা রয়েছে
বক্তারা বলেন, রূপপুর পারমাণবিক বিদ্যুৎকেন্দ্র প্রকল্প বাস্তবায়ন হোক আমরা সেটির বিপক্ষে নই কিন্তু এ প্রকল্পের জন্য বিকল্প জমির ব্যবস্থা করা হোকপুরাতন হলেও পাকশী একটি পরিকল্পিত শহরএই শহর টিকিয়ে রাখা হোক এটা আমাদের প্রাণের দাবী
সভায় অন্যন্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন গোলাম মোস্তফা রবি, একলাসুর রহমান রন্টু, খালেকুজ্জামান মিন্টু প্রমূখএ সময় ঢাকায় বসবাসরত বিভিন্ন পেশার পাকশী এলাকার অদিবাসিরা উপস্থিত ছিলেন
প্রসঙ্গতরেলওয়ে সূত্রে জানা গেছে, রূপপুর প্রকল্পের নিরাপত্তার জন্য চাওয়া এসব জমির মধ্যে প্রায় এক হাজার শতবর্ষী বিশালাকৃতির গাছ ছাড়াও ছোট-বড় আরও এক হাজারসহ প্রায় দুই হাজার গাছ রয়েছেপাকশী পদ্মা নদীতে দ্বিতীয় রেলসেতুর জন্য প্রয়োজনীয় ১১৪ দশমিক ৪৮ একর জমি ছাড়াও এর মধ্যে ডিআরএম পাকশীর দপ্তর, ১৫টি বিভাগীয় রেলওয়ে কর্মকর্তার কার্যালয়, বিভাগীয় ট্রেন কন্ট্রোল অফিস, রেলওয়ে জেলার পুলিশ সুপারের কার্যালয়, রেলওয়ে পুলিশ লাইন্স, রেলওয়ে হাসপাতাল, পোস্ট অফিস, স্কুল-কলেজসহ অন্যান্য শিক্ষা প্রতিষ্ঠান রয়েছে
পাকশীর রেললাইন থেকে ইপিজেডসহ প্রায় ৭০৬ একর জমির ওপর রূপপুর প্রকল্পের নিরাপত্তার জন্য প্রয়োজনীয় স্থাপনা গড়ে তোলা হবে  সে কারণে এই জমির সব স্থাপনাও উচ্ছেদ হবেস্থাপনাগুলোর মধ্যে রয়েছে- বাবুপাড়া, ব্যারাকপাড়া,পাকশী রিসোর্ট, মেরিনপাড়া, পাকশী রেলওয়ে কলেজ, পাকশী বাজার, বিপিএড কলেজ, পাকশী রেলওয়ে সরকারি বালিকা বিদ্যালয়, পাকশী এমএস কলোনি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, পাকশী রেলওয়ে হাসপাতালের সামনের জায়গাসহ আশপাশের বিভিন্ন এলাকার বাড়িঘর, ব্যবসা প্রতিষ্ঠান ও রেলওয়ে অফিসের কিছু অংশ

কোন মন্তব্য নেই