× প্রচ্ছদ পাবনা-৪ উপনির্বাচন ঈশ্বরদী পাবনা জাতীয় রাজনীতি আন্তর্জাতিক শিক্ষাজ্ঞন বিনোদন খেলাধূলা বিজ্ঞান-প্রযুক্তি নির্বাচন কলাম ছবি ভিডিও রূপপুর এনপিপি
Smiley face করোনা ঈশ্বরদী পাবনা বাংলাদেশ আন্তর্জাতিক খেলা প্রযুক্তি বিনোদন শিক্ষা



বাবার স্বপ্ন পূরণ করতে চান ঈশ্বরদীর কাকলী

ইতিহাস টুয়েন্টিফোর প্রতিবেদক- ঈশ্বরদী আওয়ামী লীগের সর্বজন শ্রদ্ধেয় ও নিবেদিত প্রাণ একজন নেতা ছিলেন আনিসুন্নবী বিশ্বাস।  সাধারণ মানুষের কাছেও তিনি একজন সাদা মনের মানুষ হিসেবে পরিচিত ছিলেন।  রাজনীতিতে তাঁর বিরোধী দলের  নেতারাও তাঁকে সজ্জন ও সদালাপী হিসেবে শ্রদ্ধা করতেন। নিরলস পরিশ্রম, নেত্বত্বের প্রজ্ঞা ও আদর্শবান ব্যক্তিত্বের জন্যই তিনি ঈশ্বরদী উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি নির্বাচিত হয়েছিলেন। 

মহান মুক্তিযুদ্ধের রণাঙ্গনের বীর সৈনিক আনিসুন্নবী বিশ্বাস নিজের জীবনকে বিলিয়ে দিয়েছিলেন আওয়ামী লীগের রাজনীতিতে। যৌবনের শুরুতেই বঙ্গবন্ধুর আদর্শে অনুপ্রাণিত হয়ে আওয়ামী লীগের রাজনীতিতে জড়িয়েছিলেন। আমৃত্যু তিনি আওয়ামী লীগের প্রতিটি আন্দোলন সংগ্রামে যুক্ত ছিলেন। ঈশ্বরদীর রাজপথের প্রতিটি আন্দোলন সংগ্রামে তিনি সামনের সারিতে থেকে নেতৃত্ব দিয়েছেন।

আনিসুন্নবী বিশ্বাসের মতো নিঃস্বার্থ ও আদর্শবান নেতাদের কারণেই ঈশ্বরদীতে আওয়ামী লীগ সাংগঠনিকভাবে শক্তিশালী ভীত তৈরি করতে পেরেছিল। আজীবন দলের জন্য নিবেদিত প্রাণ আনিসুন্নবী বিশ্বাস তাঁর জীবনের এক অপ্রাপ্তি নিয়েই পৃথিবী ছেড়ে চলে গেছেন। তিনি দলের কাছে উপজেলা নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদে প্রার্থী হওয়ার জন্য একাধিকবার আবেদন করেছিলেন। সর্বশেষ ২০১৪ সালের উপজেলা পরিষদ নির্বাচনেও তিনি দলের কাছে মনোনয়ন চেয়েছিলেন। কিন্তু তিনি মনোনয়ন পাননি। তৎকালীন সময় সময়ের ইতিহাস পত্রিকায় এক সাক্ষাতকারে তিনি আক্ষেপ করে বলেছিলেন ‘আমার স্বপ্ন স্বপ্নই থেকে গেল’।

চলে গেছেন আনিসুন্নবী বিশ্বাস। তাঁর সেই স্বপ্ন পূরণ করতে চান তাঁর মেয়ে আতিয়া ফেরদৌস কাকলী। আগামী উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে তিনি উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান পদে নির্বাচন করতে চান। কাকলী ঈশ্বরদী উপজেলা মহিলা যুবলীগের আহবায়ক। রাজনীতির মাধ্যমে ইতিমধ্যে ঈশ্বরদীতে তিনি নিজেকে বেশ পরিচিত করে তুলেছেন। 

কাকলী সময়ের ইতিহাসকে বলেন, "আমার বাবাকে সবাই ভালবাসতেন ও শ্রদ্ধা করতেন।  আজীবন দলের জন্য তিনি কাজ করেছেন।  তাঁর স্বপ্ন ছিল জনপ্রতিনিধি হবেন।  আমি তাঁর মেয়ে হয়ে বাবার সেই স্বপ্ন পূরণ করতে চাই। আগামী নির্বাচনে আমি ঈশ্বরদীবাসীর দোয়া ও সমর্থন নিয়ে মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদে প্রার্থী হতে চাই। ইতিমধ্যে আমি আওয়ামী লীগের সিনিয়র ও স্থানীয় নেতৃবৃন্দের সঙ্গে যোগাযোগ করেছি। তারা সবাই আমার বাবার প্রতি শ্রদ্ধা জানিয়ে আমাকে সমর্থন দেয়ার আশ্বাস দিয়েছেন। আশাকরি ঈশ্বরদীর সাধারণ মানুষ আমাকে বিজয়ী করবেন।"

কোন মন্তব্য নেই