× প্রচ্ছদ পাবনা-৪ উপনির্বাচন ঈশ্বরদী পাবনা জাতীয় রাজনীতি আন্তর্জাতিক শিক্ষাজ্ঞন বিনোদন খেলাধূলা বিজ্ঞান-প্রযুক্তি নির্বাচন কলাম ছবি ভিডিও রূপপুর এনপিপি
Smiley face করোনা ঈশ্বরদী পাবনা বাংলাদেশ আন্তর্জাতিক খেলা প্রযুক্তি বিনোদন শিক্ষা



রড ছাড়াই ঈশ্বরদীর পাকুড়িয়া স্কুল এন্ড কলেজ ভবনের জানালার লেন্টার ঢালাই


ইতিহাস টুয়েন্টিফোর প্রতিবেদকঃ
ঈশ্বরদী উপজেলার লক্ষ্মীকুন্ডার ইউনিয়নের পাকুড়িয়া স্কুল এন্ড কলেজের নতুন ভবনের নির্মাণ কাজের মানভাল না হওয়ায় লেন্টার ঢালাই ভেঙ্গে কাজ বন্ধ করে দিয়েছে শিক্ষা প্রতিষ্ঠানটির পরিচালনা কমিটি। খবর পেয়ে  ঠিকাদার   ঘটনাস্থলে   উপস্থিত  হয়ে   পরিচালনা  কমিটিসহ  গ্রামের   গণ্যমান্য   ব্যক্তিদের  সঙ্গে মিটিং করে ভবিষ্যতে কাজের মান খারাপ হবে না এবং ভবনের কোন ক্রুটি দেখা দিলে ঠিকাদার দায়ী থাকবে উলেখ করে লিখিতভাবে মুসলেকা দেওয়া দেয়। তারপর নতুন করে নির্মাণ কাজ শুরু করা হয়। শিক্ষা প্রতিষ্ঠানটির পরিচালনা কমিটির একাধিক সদস্যরা  মঙ্গলবার  জানান,জাইকার অর্থায়নের ২২ লাখ টাকা ব্যয়ে উপজেলার পাকুড়িয়া স্কুল এন্ড কলেজের দ্বি-কক্ষ বিশিষ্ট ভবণনির্মান কাজ শুরু করে মেসার্স আতিয়ার কন্সট্রাকশন নামের একটি ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান। 

গত রবিবার রাতে ঠিকাদারের লোকজন জানালার লেন্টার ঢালাইয়ে রডের ব্যবহার না করে ঢালাই কাজ শেষ করে।বিষয়টি   জানাজানি   হলে   শিক্ষা   প্রতিষ্ঠানের   পরিচালনা   কমিটির   সদস্যবৃন্দ,   ইউপি   সদস্যসহএলাকার গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গ উপস্থিত হয়ে ঢালাইটি ভেঙ্গে কাজ বন্ধ করে দেন। খবর পেয়ে ঠিকাদার সিরাজুল ইসলাম ঘটনাস্থলে  এসে   প্রতিষ্ঠানের   পরিচালনা  কমিটির সঙ্গে মিটিং করেন।  ভবিষ্যতেনির্মাণ কাজে আর কোন অনিয়ম হবে না এবং ভবনে কোন ক্রুটি দেখা দিলে ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান দায়ী থাকবে উল্লেখ করে লিখিতভাবে মুসলেকা প্রদান করেন। এরপর নতুন করে নির্মাণ কাজ শুরু করা হয়।

 পাকুড়িয়া স্কুল এন্ড কলেজের পরিচালনা কমিটির সভাপতি জিল্লুর রহমান ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, ঠিকাদার ভবিষ্যতে নির্মাণ কাজের মান খারাপ করবে না এবং ভবনের কোন ক্রুটি হলে সে দায়ীথাকবে বলে লিখিতভাবে মুসলেকা দিয়েছেন। এরপর কমিটির সকলের সিদ্ধান্তে তাকে নতুন করে কাজ শুরুকরতে অনুমতি দেয়া হয়েছে। ঠিকাদার সিরাজুল ইসলাম জানান, ঢালাই কাজে একজন মিস্ত্রীকে দায়িত্ব দেওয়া হয়েছিল। তিনিই কাজটি   খারাপ   করে   পালিয়েছেন।   এই  জন্য   তিনি   ঠিকাদার   হিসেবে   খুবই   দুঃখ   প্রকাশ   করছেন। ভবিষ্যতে নির্মাণ কাজের মান খারাপ হবে না বলে লিখিতভাবে মুসলেকা দিয়েছেন বলে স্বীকার করেন।

ঈশ্বরদী উপজেলা প্রকৌশলী এনামুল কবির জানান, খবরটি আমার জানা নেই। আমি খোঁজ নিয়ে দেখে পদক্ষেপ গ্রহন করবেন বলে আশ্বাস দেন।


কোন মন্তব্য নেই