× প্রচ্ছদ পাবনা-৪ উপনির্বাচন ঈশ্বরদী পাবনা জাতীয় রাজনীতি আন্তর্জাতিক শিক্ষাজ্ঞন বিনোদন খেলাধূলা বিজ্ঞান-প্রযুক্তি নির্বাচন কলাম ছবি ভিডিও রূপপুর এনপিপি
Smiley face করোনা ঈশ্বরদী পাবনা বাংলাদেশ আন্তর্জাতিক খেলা প্রযুক্তি বিনোদন শিক্ষা



স্বাধীনতার সূর্য, উজ্জিবিত হোক “জয় বাংলা”


গোপাল অধিকারী
২৬ মার্চ স্বাধীনতা দিবসইতিহাস বলে ১৯৭১ সালের ২৫ মার্চের মধ্যরাতে স্বাধীনতার ঘোষনা দেওয়া হয়সেই থেকেই ২৬ মার্চ স্বাধীনতা দিবসআর এর পেছনের ইতিহাসটা লম্বা১৭৫৭ সালযেদিন স্বাধীন বাংলার সূর্য অস্তমিত হয়েছিলস্বাধীন বাংলার শেষ নবাব সিরাজউদ্দোলা ১৭৫৭ সালের ২৩ জুন পলাশীর প্রান্তরে ইংরেজদের সাথে যুদ্ধ করেকিছু আত্মীয় মহলের চক্রান্ত্র ও অসযোগীতায় নবাব পরাজিত হয় এ্বং তাকে হত্যা করা হয়সেই থেকেই ভারতীয় উপমহাদেশ চলে যায় ব্রিটিশদের অধীনেচলে কোম্পানী আর ব্রিটিশদের শাসনব্যবসা করার জন্য ভারতীয় উপমহাদেশে আসলেও বাংলার জমি সোনার চেয়েও খাঁটি যা দেখে লোভ সামলাতে পারেনি ব্রিটিশরাপায়তারা করে দেশকে শাসন করারএভাবে চলে ১৯৪৭ সাল পর্যন্ত ব্রিটিশ শাসনতাইতো বলা প্রায় দুইশ বছর স্বাধীন বাংলার সূর্য অস্তমিত ছিলপ্রায় দুইশ বছর ব্রিটিশদের অত্যাচারে ভারতীয় উপমহাদেশ শোষিত হয়েছে সেই অর্থে বলা সূর্য অস্তমিত ছিল১৯৪৭ সালে ভারতীয় উপমহাদেশ ভাগ করে ভারত ও পাকিস্থান নামে দুটি রাষ্ট্র সৃষ্টি করা হয়তার আগে বঙ্গভঙ্গসহ বিভিন্ন কৌশলে ব্রিটিশরা শাসনমেয়াদ বাড়ানোর চেষ্টা করেনকিন্তু কোন উদ্দেশ্য সফল হয় নাইতৎকালীন সময়ে বর্তমান বাংলাদেশ হয়ে গেল পূর্ব পাকিস্থানতখনও আজকের বাংলাদেশ শোষিত খেলাটা একই ছিল শুধু খেলোয়াড় পরিবর্তন হয়েছিলযার প্রথম প্রমাণ মিলে বাংলাকে বাদ দিয়ে উর্দূকে রাষ্ট্রভাষা করার পাঁয়তারা করার মধ্য দিয়েকিন্তু তা সফল হয় নাইভাষার জন্য রাজপথে মিছিল করে জীবন দিয়ে বাঙালী জাতীয় পৃথিবীতে প্রথম বুঝিয়ে দিয়েছে তারা আন্দোলন করতে পারেতাঁরা ভাষার জন্য জীবন দিতে পারেসেদিন রফিক, সালাম, বরকত, জব্বার, শফিউরসহ নাম না জানা শহীদদের রক্ত বাঙালী জাতীর জাতীয়তাবাদের উন্মেষ ঘটিয়েছিলসেদিনের সেই ইতিহাস নিজেদের অধিকার আদায়ের প্রেরণ যুগিয়েছিলসাহস যুগিয়েছিল পরবর্তী সকল আন্দোলন সংগ্রামেরযার প্রতিদানস্বরূপ ১৯৫৬ সালের সংবিধানে বাংলাকেই রাষ্ট্রভাষার স্বীকৃতি দেওয়া হয়১৯৬৬ সালের ছয়দফা যার প্রথম দফাই ছিল স্বায়ত্তশাসনের, ১৯৬৯ সালের গণঅভ্যুত্থান এবং ১৯৭০ সালের নির্বাচনে বিভিন্ন ষড়যন্ত্রের মোকাবেলা করে৭০ নির্বাচন দিয়ে পরাজয় নিশ্চিত জেনে ঐ পাকিস্থানীরা শুরু করে ক্ষমতা দেবার নামে টালবাহানাআলোচনার কথা বলে ২৫ মার্চ রাতে আকস্মিকভাবে হত্যাযজ্ঞে মেতে ওঠে তারাসেদিন রাতেই চলে আপারেশন সার্চ লাইটহত্যা করে ঢাকার বিভিন্ন স্থানের বিভিন্ন শ্রেণি-পেশার মানুষকেমানবসভ্যতার ইতিহাসে একটি কলঙ্কিত দিনদিনটি গণহত্যা দিবস হিসেবে পালিত হচ্ছেএকাত্তরের অগ্নিঝরা মার্চের এদিনে বাঙালির জীবনে নেমে আসে নৃশংস, ভয়ংঙ্কর ও বিভীষিকাময় কালরাত্রিঅপারেশন সার্চলাইট নামে পরিচালিত এ অভিযানের উদ্দেশ্য ছিল বাঙালির মুক্তির আকাঙ্খাকে অঙ্কুরেই ধ্বংস করাসেইরাতে হানাদাররা ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের জগন্নাথ হল, ইকবাল হল, রোকেয়া হল, শিকদের বাসা, পিলখানার ইপিআর সদরদপ্তর, রাজারবাগ পুলিশ লাইনে একযোগে নৃশংসতা চালিয়ে হত্যা করে অগণিত নিরস্ত্র দেশপ্রেমিক ও দেশের শ্রেষ্ঠ সন্তানদেরকিন্তু তারা সফল হয় নাইবাঙালীর অদম্য মনোবলের কাছে ১৬ ডিসেম্বর পরাজিত হয়২৬ মার্চ স্বাধীনতার ঘোষণা বাঙালীর স্বাধীকার আদায়ে প্রেরণা যুগিয়েছিলমনে স্বাধীনতার স্বপ্ন বুনেছিলসেদিন যদি এই ঘোষণা না আসত তাহলে হয়তবা আমাদের বিজয়ের দিন বিলম্বিত হতোজাতি হতো দিশেহারা২৬ মার্চের ঘোষণা জাতিকে একটি পথ দেখিয়েছিলসকলে একটি লক্ষ্য নিয়েই এগিয়ে চলে২৬ মার্চ আমাদের সেই লক্ষ্যটা নির্ধারণ করে দেয়যা ইতিহাসে চিরস্মরণীয় হয়ে থাকবেআমার মনে হয় বাঙালীর স্বাধীনতার ইতিহাস একটি স্বাধীনতা প্রত্যাশী দেশকে অনুপ্রেরণ যোগাবেশুধু দেশ নয় একটি ব্যক্তি মনেও যোগাবে সাহসের বাতিস্বাধীনতার সেই সূর্য উজ্জিবিত হোকএবছরের স্বাধীনতা দিবসটি একটু আলাদাবিশ্বব্যাপী করোনার কারণে স্বাধীনতা দিবসের সকল কর্মসূচী বাতিল করেছে সরকারতবুও বলি স্বাধীনতার দ্যুতি আলো ছড়াক সকল প্রাণেজেগে উঠুক বাংলা,  শ্লোগান বলি জয় বাংলা

লেখকঃ সাংবাদিক ও কলামিস্ট

কোন মন্তব্য নেই