× প্রচ্ছদ পাবনা-৪ উপনির্বাচন ঈশ্বরদী পাবনা জাতীয় রাজনীতি আন্তর্জাতিক শিক্ষাজ্ঞন বিনোদন খেলাধূলা বিজ্ঞান-প্রযুক্তি নির্বাচন কলাম ছবি ভিডিও রূপপুর এনপিপি
Smiley face করোনা ঈশ্বরদী পাবনা বাংলাদেশ আন্তর্জাতিক খেলা প্রযুক্তি বিনোদন শিক্ষা



ঈশ্বরদীতে রমজানে ৯০ টাকার মাল্টা ২০০ টাকা

ফাইল ছবি।
রমজানের শুরু থেকেই প্রায় সব ফলের দাম বেশি। কোনো কোনো ফলের দাম প্রায় দ্বিগুণ। আবার প্রায় তিনগুণও হয়েছে কয়েকটি ফলের দাম।  বর্তমানে ৯০  টাকার মাল্টার দাম বেড়ে ঈশ্বরদীর ফলের দোকানগুলোতে বিক্রি হচ্ছে ২০০ টাকা কেজি দরে। ১২০ টাকা কেজি দরের আপেল বিক্রি হচ্ছে ১৬০ থেকে ১৮০ টাকা দরে। এছাড়াও বাজারে বেড়েছে আঙ্গুর, কমলা, খেজুরসহ সকল বিদেশী সকল ফলের দাম।

ঈশ্বরদীতে কোনো ফলের দোকানেই ব্যবসায়ীরা মূল্য তালিকা সংরক্ষণ করছেন না। ইতিপূর্বে উপজেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে প্রতিটি ফলের দোকানসহ প্রতিটি ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে মূল্য তালিকা প্রদর্শন নিশ্চিত করার নির্দেশ দিলেও দু'একটি ফলের দোকানবাদে অন্য ফলের দোকানীরা তা  মানছেন না।

ফল ব্যবসায়ীরা জানান, রমজানের আগে বিভিন্ন দেশ থেকে আসা এক কেজি মাল্টার পাইকারি দাম ছিল ৮০ থেকে ৯০ টাকা। অথচ রমজান আসার মাত্র কয়েক দিনের মধ্যে এই মাল্টাই পাইকারি কিনতে হচ্ছে ১৫০ থেকে ১৬০ টাকা দরে। তাই বাধ্য হয়ে ১৮০ অথবা ২০০ টাকা দরে কিনতে হচ্ছে। তবে এজন্য অনেক ব্যবসা করোনার প্রাদুর্ভাবকেও দায়ী করছেন।
ঈশ্বরদী বাজারের ফল কিনতে আসা শহরের পিয়ারাখালী এলাকার আলাউদ্দিন হোসেন বলেন, বাজারে সব বিদেশী ফলের দাম বেশি। মাল্টার দাম দ্বিগুন। অন্যান্য ফলের দামও কেজিতে ৫০ থেকে ৬০ টাকা বেড়েছে

ঈশ্বরদী বাজারের ফুটপাতে ফল বিক্রেতা আমির হোসেন বলেন, করোনা ভাইরাসের কারণে মানুষ মাল্টা বেশি কিনছে। কারণ এতে ভিটামিন সি রয়েছে। ফলের আড়তদাররা মাল্লাসহ বিভিন্ন ফলের মূল্য বাড়িয়ে দিয়েছে। তাই বাধ্য হয়ে আমাদের বেশি দামে কিনে বিক্রি করতেও হচ্ছে বেশি দামে।

কোন মন্তব্য নেই