× প্রচ্ছদ পাবনা-৪ উপনির্বাচন ঈশ্বরদী পাবনা জাতীয় রাজনীতি আন্তর্জাতিক শিক্ষাজ্ঞন বিনোদন খেলাধূলা বিজ্ঞান-প্রযুক্তি নির্বাচন কলাম ছবি ভিডিও রূপপুর এনপিপি
Smiley face করোনা ঈশ্বরদী পাবনা বাংলাদেশ আন্তর্জাতিক খেলা প্রযুক্তি বিনোদন শিক্ষা



ঈশ্বরদীর রাজনীতিঃ আ’লীগের তৃণমূলে নতুন মেরুকরণ দৃশ্যমান, আরও চমক অপেক্ষা করছে

ইতিহাস টুয়েন্টিফোর প্রতিবেদক-
সাবেক ভূমিমন্ত্রী, সদ্য প্রয়াত সংসদ সদস্য আলহাজ্ব শামসুর রহমান শরীফ ডিলু’র মৃত্যুর পর থেকে ঈশ্বরদীর আওয়ামীলীগের রাজনীতিতে শুরু হওয়া নতুন মেরুকরন এখন দৃশ্যমান। করোনাভাইরাসের মহামারী থেকে মুক্তি কামনায় ঈশ্বরদীতে গত কয়েকদিন ধরে স্বল্প পরিসরে দোয়া মাহফিলের আয়োজন করে এই মেরুকরনের ইঙ্গিত দিচ্ছেন ঈশ্বরদীর তৃণমুলের আওয়ামীলীগের নেতারা। 

গত রবিবার সাহাপুর ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি আকাল উদ্দিন সরদার ও গত সােমবার একই ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক আতিয়ার রহমান ভোলার বাড়িতে ইফতার মাহফিলের আয়ােজন করা হয়। সদ্য প্রয়াত এমপি শামসুর রহমান শরীফ ডিলু’র ঘনিষ্ট সহচর হিসেবে পরিচিত আকাল সরদার ও আতিয়ার রহমান ভােলা সবাইকে চমকে দিয়ে সাবেক মন্ত্রী শামসুর রহমান শরীফের বিপরীত মেরুতে থাকা স্বেচ্ছাসেবকলীগের কেন্দ্রীয় নেতা রফিকুল ইসলাম লিটনকে প্রধান অতিথি করে এসব দোয়া মাহফিলের আয়ােজন করেন। 
এর আগে সম্প্রতি সাড়া ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক আব্দুর রশিদের বাড়িতে একই ধরনের আয়োজন করা হয়। ঈশ্বরদী পৌর মহিলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক সাবিনা ইয়াসমিনসহ আওয়ামী লীগের বেশ কয়েকজন নারীনেত্রীকে এই মেরুকরনে লিটনের সঙ্গে রাজনীতিতে দৃশ্যমান দেখা গেছে। এদিকে ঈশ্বরদীর তৃণমুলের রাজনীতিতে নতুন মেরুকরনে উপজেলার বিভিন্ন ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের বেশ কয়েকজন নেতা ইতিমধ্যে রফিকুল ইসলাম লিটনের সঙ্গে ঘনিষ্ট যোগাযোগ রাখছেন বলে জানিয়েছেন ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের কয়েকজন প্রথম সারির নেতা। ঈদের আগে এবং পরে রফিকুল ইসলাম লিটনের সঙ্গে তারা রাজনীতিতে মাঠে নামবেন বলে মন্তব্যও করেছেন। এসব নেতারা বহু বছর ধরে শামসুর রহমান শরীফ ডিলুর ঘনিষ্ট রাজনৈতিক সহকর্মী ছিলেন অথচ তার মৃত্যুর পরপরই রফিকুল ইসলাম লিটনের নেতৃত্ব মেনে নিয়ে এবং প্রয়াত এমপির পরিবারের বিরুদ্ধে প্রকাশ্য অবস্থান জানান দেওয়ায় অনেকে বিস্ময় প্রকাশ করেছেন।
নাম প্রকাশ না করার শর্তে বিভিন্ন ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের একাধিক নেতারা এ প্রসঙ্গে বলেন, সামনে উপ-নির্বাচন। এই উপনির্বাচনের মনোনয়নের মধ্য দিয়েই ঈশ্বরদীর আওয়ামীলীগের রাজনীতি নতুন মেরুকরনে আরো স্পষ্ট হবে। লিটনের সঙ্গে ইতিমধ্যে ঈশ্বরদী পৌর আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক ইছাহক আলী মালিথা, মুলাডুলি ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সিনিয়র সহ-সভাপতি আব্দুর রহমান ফান্টু মন্ডল, সলিমপুর ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক নায়েক এম এ কাদের, লক্ষীকুন্ডা ইউনিয়নের সাবেক চেয়ারম্যান আনিছুর রহমান মােল্লা ও উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান আতিয়া ফেরদৌস কাকলী প্রকাশ্যেই রয়েছেন। ঈশ্বরদী পৌরসভা ও উপজেলা আওয়ামীলীগের বর্তমান ও সাবেক একাধিক নেতা লিটনের সঙ্গে নিয়মিত যােগাযােগ রাখছেন, যােগাযােগের এই তালিকায় ছাত্রলীগ ও যুবলীগের বর্তমান ও সাবেক নেতারাও রয়েছেন। 

এসব বিষয়ে রফিকুল ইসলাম লিটন বলেন, নতুন প্রেক্ষাপটে ঐক্যবদ্ধ হলে আওয়ামীলীগের ত্যাগী নেতাদের ওপর আর কেউ হামলা-মামলা বা নির্যাতন করতে পারবেনা। এ কারনে সবাইকে নিয়ে আমরা ঐক্যবদ্ধ হওয়ার চেষ্টা করছি।

কোন মন্তব্য নেই