× প্রচ্ছদ পাবনা-৪ উপনির্বাচন ঈশ্বরদী পাবনা জাতীয় রাজনীতি আন্তর্জাতিক শিক্ষাজ্ঞন বিনোদন খেলাধূলা বিজ্ঞান-প্রযুক্তি নির্বাচন কলাম ছবি ভিডিও রূপপুর এনপিপি
Smiley face করোনা ঈশ্বরদী পাবনা বাংলাদেশ আন্তর্জাতিক খেলা প্রযুক্তি বিনোদন শিক্ষা



আর্থিক অনুদানের দাবিতে ঈশ্বরদী কিন্ডারগার্টেন এসোসিয়েশনের মানববন্ধন


ইতিহাস টুয়েন্টিফোর প্রতিবেদকঃ 
করোনা মহাদুর্যোগে ক্ষতিগ্রস্ত কিন্ডারগার্টেন স্কুলগুলোর জন্য প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার কাছে আর্থিক অনুদানের দাবিতে দেশব্যাপী কর্মসূচির অংশ হিসেবে বাংলাদেশ কিন্ডারগার্টেন এসোসিয়েশন ঈশ্বরদী উপজেলা শাখার উদ্যোগে  মানববন্ধন ও অবস্থান কর্মসুচি পালিত হয়।
বৃহস্পতিবার (১৬ জুলাই) সকাল ১০টায় ঈশ্বরদী রেলগেট জিরো পয়েন্টে   ঘন্টাব্যাপী এই মানববন্ধন ও অবস্থান কর্মসূচিতে উপজেলার সকল কিন্ডারগার্টেন’র শিক্ষকবৃন্দ ও কর্মচারীরা অংশ গ্রহন করেন।
এ সময় বক্তব্য দেন ঈশ্বরদী উপজেলা কিন্ডারগার্টেন এসোসিয়েশনের সভাপতি লুৎফর রহমান,সায়রুন-নেসা মল্লিক আইডিয়াল হাই স্কুল এন্ড কিন্ডার গার্টেনের অধ্যক্ষ  উদয় নাথ লাহিড়ী, মাতৃছায়া কিন্ডারগার্টেন এর পরিচালক শেখ মহসীন ও  সকাল প্রি-ক্যাডেট স্কুলের পরিচালক মহিদুল ইসলাম। মানববন্ধন ও অবস্থান কর্মসূচী পরিচালনা করেন সংগঠনের সাধারণ সম্পাদক রেজাউল করিম লিটন। 
মানববন্ধন শেষে ঈশ্বরদী উপজেলা নির্বাহী অফিসারের নিকট কিন্ডারগার্টেন এসোসিয়েশনের পক্ষ থেকে স্মারকলিপি প্রদান করা হয়। 
মানববন্ধনে শিক্ষকরা প্রধানমন্ত্রীর প্রতি বিভিন্ন দাবি বাস্তবায়নের অনুরোধ জানান। দাবিগুলো হচ্ছে- বিশেষ আর্থিক প্রনোদনা (শিক্ষক ও প্রতিষ্ঠান), সহজ শর্তে ব্যাংক লোন, আপতকালীন সংকট মোকাবেলায় সহযোগিতা, কিন্ডার গার্টেন স্কুলের সমস্যাকে জাতীয় সমস্যা হিসেবে বিবেচনা করা, প্রাথমিক শিক্ষার অবদানে কিন্ডার গার্টেনকে গুরুত্ব প্রদান ও সহজ প্রক্রিয়ায় নিবন্ধন ত্বরান্বিত করা। এসব দাবি দ্রুত বাস্তবায়নে প্রধানমন্ত্রীর হস্তক্ষেপ কামনা করেন তারা।
বক্তারা বলেন, ঈশ্বরদী কিন্ডারগার্টেনের শিক্ষক-কর্মচারীরা প্রতিষ্ঠানের ছাত্রছাত্রীদের ফি’র টাকায় বেতন পান। চার মাস যাবৎ প্রতিষ্ঠানগুলো বন্ধ। অভিভাবকদের কাছ থেকে কোনো রকম ফি তাঁরা নিতে পারছেন না। তাই কোনো শিক্ষক-কর্মচারীকেও প্রতিষ্ঠানগুলো বেতন দিতে পারছেন না। ভাড়ায় থাকা স্কুলগুলোর অবস্থা আরও বেগতিক। প্রাতিষ্ঠানিক ভাড়া, বিদ্যুৎ বিলসহ বিভিন্ন রকম বিব্রতকর পরিস্থিতিতে পড়তে হয় প্রতিষ্ঠান প্রধানদের। করোনার কারণে স্কুল বন্ধ থাকায় অসহায়  শিক্ষক ও কর্মচারীদের আর্থিক সহযোগিতা ও সহজ শর্তে ঋণ দেওয়ার জন্য সরকারের প্রতি অনুরোধ জানান।
বক্তাগণ বলেন, বর্তমানে ঈশ্বরদী  অর্ধ শত কিন্ডারগার্টেন ও সম-মানের শিক্ষা প্রতিষ্ঠান গড়ে উঠেছে। এসব প্রতিষ্ঠানে হাজার হাজার শিশু শিক্ষার্থী লেখাপড়া করার সুযোগ পাচ্ছে। প্রায় ৫০০ শিক্ষক ও কর্মচারীদের কর্মস্থানের সুযোগ সৃষ্টি হয়েছে। করোনা সঙ্কটময় পরিস্থিতিতে বিপুল জনসংখ্যা করোনা ভাইরাস মোকাবেলায় সরকার ঘোষিত নির্দেশনা অনুযায়ী ১৬ মার্চ হতে স্কুল বন্ধ থাকায় অর্থাভাবে মানবেতর জীবনযাপন করছে।
বক্তারা বলেন, প্রায় নব্বই শতাংশ শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বাড়ি ভাড়া নিয়ে পরিচালিত হয়। কাজেই মাসের শুরুতেই পরিশোধ করতে হয় মোটা অংকের বাড়ি ভাড়া। এছাড়াও রয়েছে শিক্ষক ও কর্মচারিদের বেতন, বাণজ্যিক হারে বিদ্যুৎ বিল এবং পানির বিলসহ অন্যান্য ব্যয়।
দীর্ঘদিন যাবৎ স্কুল বন্ধ থাকায় প্রতিষ্ঠানগুলো চরম আর্থিক ক্ষতির সম্মুখীন হয়েছে। শিক্ষা পতিষ্ঠান চালানো তো দূরের কথা অর্থসংকটে তারা পরিবার পরিজন নিয়ে দিশেহারা হয়ে পড়েছেন।
এ সঙ্কটময় পরিস্থিতি নিরসনের লক্ষ্যে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নিকট তারা আর্থিক সহায়তা ও সহজশর্তে ঋণ প্রাপ্তির জোড়ালো দাবি জানান।

কোন মন্তব্য নেই