× প্রচ্ছদ পাবনা-৪ উপনির্বাচন ঈশ্বরদী পাবনা জাতীয় রাজনীতি আন্তর্জাতিক শিক্ষাজ্ঞন বিনোদন খেলাধূলা বিজ্ঞান-প্রযুক্তি নির্বাচন কলাম ছবি ভিডিও রূপপুর এনপিপি
Smiley face করোনা ঈশ্বরদী পাবনা বাংলাদেশ আন্তর্জাতিক খেলা প্রযুক্তি বিনোদন শিক্ষা



৫ যোগ্যতায় উপনির্বাচনে মনোনয়ন দেবে আওয়ামী লীগ

জাতীয় সংসদের ৫টি শূন্য আসনে উপনির্বাচন অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে। আর এই উপনির্বাচনের জন্য আওয়ামী লীগ এখন মনোনয়ন ফরম বিক্রয় করছে। আগামী ২৩ আগস্ট পর্যন্ত মনোনয়ন ফরম বিক্রয় করা হবে। ২৪ আগস্ট আওয়ামী লীগের সংসদীয় ও মনোনয়ন সংক্রান্ত বোর্ডের বৈঠক আহ্বান করা হয়েছে। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এই বোর্ডের সভাপতি। সংশ্লিষ্ট সূত্রগুলো বলছে সাম্প্রতিক সময়ে আওয়ামী লীগের নাম ব্যবহার করে বিভিন্ন অনুপ্রবেশকারীর আচরন, তাদের দুর্নীতি এবং অপকর্মের কারণে মনোনয়ন সংক্রান্ত সংসদীয় বোর্ড মনোনয়নের ক্ষেত্রে কঠোর অবস্থান নেবে। অনেক যাচাই বাছাই এর মাধ্যমে এই মনোনয়ন দেওয়া হবে বলে একাধিক সূত্র জানিয়েছে। সংশ্লিষ্ট সূত্র মতে আওয়ামী লীগের নীতিনির্ধারক মহল ৫টি বিষয় মনোনয়ন দেওয়ার ক্ষেত্রে বিবেচনা করবে। এই ৫টি বিষয়ের মধ্যে রয়েছে;

১০ বছর বা বেশি সময় আওয়ামী লীগ করতে হবে
হুট করে দলে আসা কেউ এবার মনোনয়ন পাবেন না এটা মোটামুটি নিশ্চিত। আওয়ামী লীগের মনোনয়ন সংক্রান্ত বোর্ডের একাধিক সদস্যের সাথে কথা বলে জানা গেছে যে দলের সভাপতি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার মনোভাব খুব সুস্পষ্ট। প্রধানমন্ত্রী জানিয়ে দিয়েছেন যে, যারা দীর্ঘদিন ধরে আওয়ামী লীগের রাজনীতির সাথে জড়িত কেবল তারাই মনোনয়নের জন্য বিবেচিত হবে। আওয়ামী লীগ ২০০৮ সাল থেকে টানা ক্ষমতায় রয়েছে অর্থাৎ সাড়ে এগারো বছরে বেশি সময় ধরে আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় রয়েছে। এই সময়ে অনেকেই নানা রকম সুবিধা পাওয়ার আশায় এবং অপকর্ম করার জন্য দুরভিসন্ধিমূলকভাবে আওয়ামী লীগে যোগ দিয়েছেন। এদেরই সব চাইতে বেশি টার্গেট থাকে মনোনয়ন প্রাপ্তির। আর এই কারণেই এবার মনোনয়ন দেওয়ার ব্যাপারে একটি নির্দিষ্ট সময়সীমা বেধে দেয়া হচ্ছে। যারা ১০ বছর বা তার বেশি সময় ধরে আওয়ামী লীগ করেনি তাদেরকে মনোনয়ন বঞ্চিত করা হবে।

অতীত ভুমিকা
১৯৭৫ সালের ১৫ই আগস্ট, ২০০১ সালের অক্টোবরের নির্বাচনের পর ২০০৪ সালের গ্রেনেড হামলা এবং ২০০৭ সালের ওয়ান ইলেভেনের সময়ের ভূমিকা ছাড়াও অতীতে মনোনয়ন প্রত্যাশী ব্যক্তির ভূমিকা কি তা মনোনয়ন দেওয়ার ক্ষেত্রে বিবেচনা করা হবে। এই সময়কালগুলোই আসলে একজন ত্যাগী পরীক্ষিত কর্মীকে চিহ্নিত করার সব চাইতে ভালো সময় বলে মনে করছেন আওয়ামী লীগের নীতি নির্ধারকরা।

কাজেই এই সময়গুলোতে তাদের ভুমিকা পর্যালোচনা করা হবে মনোনয়ন প্রদানের ক্ষেত্রে। এই সময়গুলোতে যাদের অবদান বেশি তারা মনোনয়নের ক্ষেত্রে অগ্রাধিকার পাবে।

দলের জন্য অবদান
মনোনয়ন প্রত্যাশী ব্যক্তিটি দলের জন্য কি অবদান রেখেছেন? দলকে সংগঠিত করার ক্ষেত্রে, দলকে এগিয়ে নেয়ার ক্ষেত্রে তার সুনির্দিষ্ট ভূমিকা মনোনয়ন বোর্ড বিবেচনা করবে মনোনয়ন দেয়ার ক্ষেত্রে।

ফৌজদারি অপরাধ
এবার যে বিষয়টি মনোনয়ন দেওয়ার ক্ষেত্রে বিশেষ ভাবে দেখা হবে তা হলো, মনোনয়ন প্রত্যাশী ব্যক্তিটির বিরুদ্ধে কোন ফৌজদারি মামলা আছে কিনা। মামলা থাকলে কোন আমলে হয়েছে, কখন ও কি ধরণের অভিযোগ রয়েছে? ২০০৮ এর পর তার বিরুদ্ধে চাঁদাবাজি, টেন্ডারবাজী, হত্যা বা কোন রকম ফৌজদারি অপরাধ থাকলে তিনি মনোনয়ন দৌড়ে অনিবার্যভাবে পিছিয়ে পড়বেন। আওয়ামী লীগের একজন দায়িত্বশীল নেতা বলেছেন, ক্লিন ইমেজের প্রার্থী, যার বিরুদ্ধে কোনরকম ফৌজদারি অপরাধের অভিযোগ নেই, তাকে মনোনয়নের ক্ষেত্রে অগ্রাধিকার দেয়া হবে।

দুর্নীতির অভিযোগ
সাম্প্রতিক সময় আওয়ামী লীগের কিছু ব্যক্তির বিরুদ্ধে দুর্নীতির অভিযোগ উঠেছে। বিশেষ করে ত্রানের অর্থ আত্মসাৎ, টেন্ডারে অনিয়ম, নিয়োগ বাণিজ্যের মতো অভিযোগ যাদের বিরুদ্ধে উঠেছে তারা মনোনয়ন দৌড়ে পিছিয়ে পড়বেন।

দুর্নীতির অভিযোগ রয়েছে এই ধরনের ব্যক্তিদেরকেও এবার মনোনয়ন দেয়া হবে না বলে আওয়ামী লীগের দায়িত্বশীল সূত্র গুলো নিশ্চিত করেছে। সংশ্লিষ্ট সূত্রগুলো বলছে এই পাঁচটি বিষয় বিবেচনা করেই সংসদীয় পাঁচটি আসনের প্রার্থী চূড়ান্ত করা হবে।

তথ্যসূত্র- বাংলা ইনসাইডার

কোন মন্তব্য নেই