× প্রচ্ছদ পাবনা-৪ উপনির্বাচন ঈশ্বরদী পাবনা জাতীয় রাজনীতি আন্তর্জাতিক শিক্ষাজ্ঞন বিনোদন খেলাধূলা বিজ্ঞান-প্রযুক্তি নির্বাচন কলাম ছবি ভিডিও রূপপুর এনপিপি
Smiley face করোনা ঈশ্বরদী পাবনা বাংলাদেশ আন্তর্জাতিক খেলা প্রযুক্তি বিনোদন শিক্ষা



নির্দেশনা মাথায় নিয়েই ঈশ্বরদী জুড়ে চলছে পূজার প্রস্তুতি

অপুর্ব চৌধুরী, ইতিহাস টুয়েন্টিফোর- সার্বজনীন ধর্মীয় উৎসব শারদীয় দুর্গাপূজার বাকি নেই বেশি দিন। সারাদেশের মতো ঈশ্বরদীতেও পূজার স্থায়ী-অস্থায়ী মণ্ডপগুলোতে চলছে প্রতিমা তৈরির কাজ। যদিও এ বছর মহামারি করোনার প্রাদুর্ভাবের কারণে শারদীয় দূর্গোৎসব আয়োজন নিয়ে কিছুটা সংশয় তৈরি হয়েছিল। পরবর্তীতে সরকার পূজা উদযাপনের কিছু বিধি-নিষেধ বেধে দেয়। আর তাই সরকার প্রদত্ত নির্দেশনা মেনেই পূজা আয়োজনের প্রস্তুতি নিচ্ছেন ঈশ্বরদীর মন্দির কমিটিগুলো।

জানা গেছে, এবছর উপজেলা কমিটির কাছে কেন্দ্রীয় পূজা উদযাপন পরিষদের পক্ষ থেকে ২৬টি নীতিমালা পাঠানো হয়েছে। যদিও শোনা যাচ্ছে বর্তমান পরিস্থিতি বিবেচনায় এই ২৬টি নীতিমালা সংক্ষিপ্ত করে আবার নতুন নীতিমালা দেয়া হবে।

বাংলাদেশ পূজা উৎযাপন পরিষদ ঈশ্বরদী উপজেলা কমিটির দেয়া তথ্য অনু্যায়ী এবছর উপজেলায় ছোট বড় মিলে মোট ২৮ টি পূজা মণ্ডপে আয়োজন করা হবে শারদীয় দূর্গোৎসবের। এর মধ্যে ঈশ্বরদী পৌর এলাকায় ৮টি, সাঁড়া ইউনিয়নে ৬টি, পাকশী ইউনিয়নে ৩টি, মুলাডুলি ইউনিয়নে ৫টি, লক্ষ্মীকুণ্ডা ইউনিয়নে ২টি, সাহাপুর ইউনিয়নে ২টি ও দাশুড়িয়া ইউনিয়নে ২টি মণ্ডপে পূজার আয়োজন করা হয়েছে।

সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, ঈশ্বরদী শহরের ঠাকুরবাড়ি, মাতৃমন্দির, রেলগেট, আরামবাড়ি মন্দিরসহ অনেক মন্দিরে চলছে প্রতিমা গড়ার কাজ। শহরের থেকে দূরে শতবর্ষী ঐতিহ্যবাহী মন্দির মৌবাড়িতে চলছে মন্দির রঙ করার কাজ। একমাত্র অস্থায়ী পূজা মণ্ডপ স্কুলপাড়ায় চলছে প্যান্ডেল তৈরির কাজ।

প্রতিমা গড়ার কারিগর সনজিত কর্মকার বলেন, ঈশ্বরদীতে প্রতিমার কাজ করতে কোনো প্রতিবন্ধকতার মধ্যে পড়তে হয়না। করোনা মহামারীতে অনিশ্চিত পূজায় কাজ হারানোর ভয় কাজ করলেও প্রতিমা গড়ার কাজ করতে পেতে আনন্দিত। 

ঈশ্বরদী পূজা উদযাপন পরিষদের সভাপতি সুনীল চক্রবর্তী ইতিহাস টুয়েন্টিফোরকে বলেন, সরকারী নির্দেশ মেনে এবছর দূর্গাপূজা আয়োজনের প্রস্তুতি চলছে। করোনা সংকটে অনেকটাই অনিশ্চিত হয়ে পড়েছিল দূর্গাপূজা কিন্তু সে আধার এখন কেটে গেছে। মন্দিরগুলোতে পূজার প্রস্তুতি দেখে দেখে খুব ভালো লাগছে।

ঈশ্বরদী থানায় এক মতবিনিময় সভায় সার্কেল পুলিশ সুপার ফিরোজ কবীর বলেন, প্রতিটি পূজামণ্ডপে যেন কোনো ধরনের বিশৃঙ্খলার সৃষ্টি না হয় সেজন্য নিরাপত্তা বাহিনীর সঙ্গে কমিটিকেও সজাগ দৃষ্টি রাখতে হবে। পূজায় সর্বোচ্চ নিরাপত্তার ব্যবস্থা করা হবে এবং যেকোনো সমস্যায় থানা পুলিশকে সরাসরি জানানোর জন্য বলা হয়েছে। 

কোন মন্তব্য নেই