× প্রচ্ছদ পাবনা-৪ উপনির্বাচন ঈশ্বরদী পাবনা জাতীয় রাজনীতি আন্তর্জাতিক শিক্ষাজ্ঞন বিনোদন খেলাধূলা বিজ্ঞান-প্রযুক্তি নির্বাচন কলাম ছবি ভিডিও রূপপুর এনপিপি
Smiley face করোনা ঈশ্বরদী পাবনা বাংলাদেশ আন্তর্জাতিক খেলা প্রযুক্তি বিনোদন শিক্ষা



আটঘরিয়ায় অন্তঃসত্ত্বা গৃহবধূ হত্যার পর ফেলা হয় পুকুরে

পাবনায় অন্তঃসত্ত্বা গৃহবধূ হত্যার পর ফেলা হয় পুকুরে

ইতিহাস টুয়েন্টিফোর প্রতিবেদকঃ 

আটঘরিয়ায় যৌতুকের দাবিতে অন্তঃসত্ত্বা গৃহবধূকে নির্যাতনে হত্যার পর লাশ পুকুরে ফেলে দেয়ার অভিযোগ উঠেছে স্বামী ও শ্বশুর বাড়ির লোকজনের বিরুদ্ধে।

সোমবার (১ নভেম্বর) সকাল ৯টার দিকে এ ঘটনা ঘটে।

ঘটনার পর গৃহবধূর স্বামী ও শাশুড়িকে আটক করা হলেও পরিবারের অন্য সদস্যরা পালিয়ে গেছে।

নিহত গৃহবধূর নাম আমেনা খাতুন (২২)। তিনি আটঘড়িয়া পৌর সদরের কন্দপপুর মহল্লার জাহিদ হোসেনের স্ত্রী।

এলাকাবাসী জানান, পৌর সদরের চক ধলেশ্বর মহল্লার আমিন উদ্দিনের মেয়ে আমেনা খাতুনের সঙ্গে পাঁচ বছর আগে বিয়ে হয় কন্দপপুর মহল্লার হায়দার আলীর ছেলে জাহিদ হোসেনের। তাদের সংসারে চার বছরের একটি কন্যা সন্তান রয়েছে। গৃহবধূ আট মাসের অন্তঃসত্ত্বা ছিলেন।

নিহত আমেনার বাবা আমিনুদ্দিন জানান, বিয়ের পর থেকেই যৌতুকের দাবিতে আমেনাকে নির্যাতন করে আসছিলেন তার স্বামী। গত বছরেও বিষয়টি নিয়ে পৌরসভায় সালিশ বৈঠকের মাধ্যমে সুরাহা হয়। তারপরেও স্বামী শাশুড়ি মিলে প্রায়শই আমেনাকে মারধর করতেন।

আমিনুদ্দিন অভিযোগ করেন, সোমবার ভোরে স্বামী শাশুড়ি মিলে আমেনাকে প্রচণ্ড মারধর করলে মারা যান তিনি। পরে বাড়ির পাশে পুকুরে তারা মরদেহ ফেলে দেয়। স্থানীয়দের কাছ থেকে খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে গিয়ে মরদেহ উদ্ধার করে পুলিশ।

আটঘরিয়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আসিফ মোহাম্মদ সিদ্দিকুল ইসলাম জানান, নিহত গৃহবধূর মুখে আঘাতের চিহ্ন রয়েছে। মরদেহ ময়নাতদন্তের জন্য পাবনা জেনারেল হাসপাতাল মর্গে পাঠানো হয়েছে।

এ ঘটনায় আমেনার বাবা আমিনুদ্দিন বাদী হয়ে আটঘড়িয়া থানায় হত্যা মামলা দায়ের করেছেন।

গৃহবধূর স্বামী জাহিদ হোসেন ও শাশুড়ি রাশিদা খাতুনকে আটক করা হয়েছে।

কোন মন্তব্য নেই