× প্রচ্ছদ পাবনা-৪ উপনির্বাচন ঈশ্বরদী পাবনা জাতীয় রাজনীতি আন্তর্জাতিক শিক্ষাজ্ঞন বিনোদন খেলাধূলা বিজ্ঞান-প্রযুক্তি নির্বাচন কলাম ছবি ভিডিও রূপপুর এনপিপি
Smiley face করোনা ঈশ্বরদী পাবনা বাংলাদেশ আন্তর্জাতিক খেলা প্রযুক্তি বিনোদন শিক্ষা



পাবনা সুগার মিল বন্ধ ঘোষণা, শ্রমিক-কর্মচারীদের দফায় দফায় বিক্ষোভ

ইতিহাস টুয়েন্টিফোর প্রতিবেদকঃ 
ঈশ্বরদীতে অবস্থিত পাবনা সুগার মিল আনুষ্ঠানিকভাবে বন্ধ ঘোষণা করা হয়েছে। পাবনা সুগার মিলের ব্যবস্থাপনা পরিচালক সাইফ উদ্দিন আহম্মেদ এই তথ্য নিশ্চিত করে জানান, বুধবার (২ ডিসেম্বর) শিল্প মন্ত্রণালয় থেকে পাবনা সুগার মিলসহ ৬টি মিল বন্ধের চিঠি প্রেরণ করা হয়েছে। এদিকে মিল বন্ধের ঘোষণার প্রতিবাদে শ্রমিক-কর্মচারী ও আখ চাষীরা দফায় দফায় বিােভ করেন। এসময় বিুদ্ধ শ্রমিক-কর্মচারী ঈশ্বরদী-পাবনা মহাসড়ক অবরোধের চেষ্টা করলে পুলিশ তাদের বাঁধা দেয়। 
জানা যায়, শিল্প মন্ত্রণালয়ের ১১৬ নং স্মারকের এক চিঠিতে বলা হয়, চিনি আহরণের হার,আখের জমি, মিলের অবস্থা/দতা, লোকসান ও রণাবেণ ব্যয় বিবেচনায় চলতি আখ মাড়াই মৌসুমে ১৫টি চিনিকলের মধ্যে অধিকতর বিবেচনায় ৯টি চিনিকলে উৎপাদন পরিচালনা করা ও অবশিষ্ট ৬টি মিলে আখ মাড়াই না করার প্রস্তাব করা হলো। আখ মাড়াই স্থগিতকৃত চিনিকলগুলোর মধ্যে রয়েছে, পাবনা সুগার মিল, কুষ্টিয়া সুগার মিল,পঞ্চগড় সুগার মিল, শ্যামপুর সুগার মিল, রংপুর সুগার মিল ও সেতাবগ্ঞ্জ সুগার মিল।

ওই চিঠিতে আরও বলা হয়, যেসব মিলে চলতি মৌসুমে আখ মাড়াই করা হবেনা সেসব এলাকায় উৎপাদিত ও কৃষকের সরবরাহকৃত আখ নিকটস্থ চালু চিনিকলে পরিবহন করে নিয়ে যাওয়ার উদ্যোগ গ্রহণ করা হবে। উৎপাদন স্থগিতকৃত মিল হতে কিছু কর্মকর্তা-কর্মচারীকে চালুকৃত মিলে সংযুক্ত/বদলি পূর্বক সমন্বয় করা হবে।

পাবনা সুগার মিল বন্ধের প্রতিবাদে বুধবার সকালে মিলের শ্রমিক-কর্মচারী ও আখচাষীরা  দফায় দফায় বিােভ করেন।  এসময় দাঙ্গা পুলিশসহ বিপুল সংখ্যক পুলিশ মিল গেটে অবস্থান নেয়। এক পর্যায়ে মহাসড়ক অবরোধ করতে গেলে পুলিশ ও বিােভকারীরা মূখোমুখি হয়। এসময় পুলিশের প থেকে শান্তিপূর্ণভাবে কর্মসূচি পালনের জন্য অনুরোধ জানানো হলে বিােভকারীরা মিলগেটে অবস্থান নিয়ে বিভিন্ন শ্লোগান দেয়। এসময় মিল চালুর রাখার দাবি জানিয়ে বক্তব্য রাখেন শ্রমিক লীগের আঞ্চলিক শাখার সাধারণ সম্পাদক ইব্রাহিম হোসেন, পাবনা চিনিকল শ্রমিক কর্মচারী ফেডারেশনের সভাপতি  সাজেদুল ইসলাম শাহিন, সাধারণ সম্পাদক আশরাফুজ্জামান উজ্জল, শ্রমিক নেতা জাহিদুল ইসলাম জাহিদ। সভাপতিত্ব করেন আখচাষী ফেডারেশনের সভাপতি শাজাহান আলী বাদশা।  

বাংলাদেশ খাদ্য ও চিনি শিল্প করপোরেশনের চেয়ারম্যান সনৎ কুমার সাহা বলেন, পাবনা সুগার মিলসহ ৬টি মিল বন্ধ রাখার সিদ্ধান্ত নিয়েছে সরকার। করপোরেশন থেকে এই সংক্রান্ত একটি চিঠি শিল্প মন্ত্রণালয়কে বেশ কিছুদিন আগেই দেয়া হয়েছিল। মন্ত্রণালয় এতে সম্মতি দিয়ে মিল ৬টি বন্ধ ঘোষণা করেন।

উলে­খ্য,  পাবনা সুগার মিল ক্রমাগত লোকসানের কারণে বন্ধ হতে যাচ্ছে এমন খবর বেশ কিছু দিন ধরে শোনা যাচ্ছিল। মিলটি জন্মলগ্ন থেকেই ঋণ ও ঋণের সুদসহ লোকসানের বোঝা নিয়ে এতোদিন চালু ছিল। চার শত কোটি টাকারও বেশি লোকসানে পড়ায় চিনি ও খাদ্য শিল্প করপোরেশন মিলটি বন্ধে নীতিগত সিদ্ধান্ত গ্রহণ করে।

১৯৯২ সালের ২৭ ডিসেম্বর ঈশ্বরদীর দাশুড়িয়া ইউনিয়নের পাকুড়িয়া মৌজায় ৬০ একর জমির উপর পাকিস্তান সরকারের আর্থিক সহযোগিতায় 'পাবনা সুগার মিল' প্রতিষ্ঠিত হয়। ১৯৯৭-৯৮ অর্থবছরে আখ মাড়াই মৌসুমে মিলটির পরীামূলক উৎপাদন শুরু হয়। মিলটি বাণিজ্যিকভাবে চিনি উৎপাদন শুরু করে ১৯৯৮-৯৯ অর্থবছরে। চালুর পর থেকেই মিলে উৎপাদন ঘাটতি ও লোকসানের কবলে পড়ে। আখের স্বল্পতা, আখ হতে চিনি আহরণের হার কম থাকা, মাথাভারী প্রশাসন, সুদসহ ঋণের কিস্তি পরিশোধ, উৎপাদিত চিনি অবিক্রীত থাকাসহ নানাবিধ সংকটে পাবনা চিনিকলের লোকসানের পরিমাণ দাঁড়িয়েছে প্রায় চার শত কোটি টাকারও বেশী।

কোন মন্তব্য নেই