× প্রচ্ছদ পাবনা-৪ উপনির্বাচন ঈশ্বরদী পাবনা জাতীয় রাজনীতি আন্তর্জাতিক শিক্ষাজ্ঞন বিনোদন খেলাধূলা বিজ্ঞান-প্রযুক্তি নির্বাচন কলাম ছবি ভিডিও রূপপুর এনপিপি
Smiley face করোনা ঈশ্বরদী পাবনা বাংলাদেশ আন্তর্জাতিক খেলা প্রযুক্তি বিনোদন শিক্ষা



চলন্ত ট্রেনে সন্তান প্রসব!

ইতিহাস টুয়েন্টিফোর প্রতিবেদকঃ
রেলস্টেশন পার হওয়ার সময় আন্তঃনগর দ্রুতযান এক্সপ্রেস ট্রেনের মধ্যেই এক নারী কন্যাসন্তান প্রসব করেছেন। আর তাই একটি ট্রেনের নামে নবজাতকের নাম রাখা হয়েছে 'মিতালী'। 
রোববার সকাল পৌনে ১০টার দিকে এ ঘটনা ঘটে। প্রসূতি ও তার নবজাতককে দিনাজপুরের ২৫০ শয্যা বিশিষ্ট জেনারেল হাসপাতালের গাইনি ওয়ার্ডে ভর্তি করা হয়েছে।

ট্রেনটিতে করে ওই প্রসূতি ও তার স্বামী ঠাকুরগাঁওয়ের পীরগঞ্জ স্টেশন থেকে দিনাজপুরে আসছিলেন।

এদিকে নতুন অতিথির আগমনের জন্য আন্তঃনগর দ্রুতযান এক্সপ্রেস ট্রেন নির্ধারিত সময়ের ১৬ মিনিট পর দিনাজপুর স্টেশন থেকে ছেড়ে যায়। 

এর আগে প্রসূতি মুক্তি পারভীন ও তার নবজাতক কন্যাসন্তানকে অ্যাম্বুলেন্সে করে  হাসপাতালে পৌঁছে দিয়েছে দিনাজপুর রেলওয়ে কর্তৃপক্ষ। এছাড়া হাসপাতালের পক্ষ থেকে মুক্তি পারভীন ও নবজাতককে একগুচ্ছ ফুল, ডালাভর্তি ফল, বিনামূল্যে প্রয়োজনীয় ওষুধ ও নতুন কাপড় উপহার দেওয়া হয়। 

মুক্তি পারভীন ঠাকুরগাঁওয়ের পীরগঞ্জ উপজেলার ভুমরাদহ হাজীপাড়া গ্রামের মনসুর আলীর স্ত্রী।

মনসুর আলী জানান, এটা তাদের দ্বিতীয় সন্তান। তাদের ২ বছরের একটি কন্যা সন্তান রয়েছে। মুক্তি পারভীন দিনাজপুরে সেন্ট ভিনসেন্ট (মিশন হাসাপতাল) হাসপাতালে চিকিৎসাসেবা নিয়ে আসছিলেন। আগামী ৮ এপ্রিল তার সন্তান প্রসবের সম্ভাব্য তারিখ ছিল। তাই সকালে স্ত্রীকে নিয়ে ডাক্তার দেখানোর উদ্দেশে ঢাকাগামী দ্রুতযান এক্সপ্রেসের শোভন শ্রেণির ৭৫৮ নং ট্রেনের 'ঙ' বগিতে করে দিনাজপুরে আসছিলেন। পথে প্রসবব্যথা শুরু হলে ট্রেনে থাকা নারী যাত্রীরা এগিয়ে আসেন। দিনাজপুরের মঙ্গলপুর রেলস্টেশন পার হওয়ার পর মুক্তি পারভীন নিরাপদে সন্তান প্রসব করেন। ট্রেনটি দিনাজপুর স্টেশনে পৌঁছালেও ফুল না পড়ার কারণে মুক্তি পারভীন ও নবজাতককে ট্রেন থেকে নামানোর মতো পরিস্থিতি ছিল না। পরে মহিলা স্টেশন মাস্টার নার্গিস বেগম এবং একজন স্থানীয় প্রশিক্ষণপ্রাপ্ত দাইয়ের সহযোগিতায় মুক্তি ও নবজাতককে নিরাপদে ট্রেন থেকে নামিয়ে অ্যাম্বুলেন্সে করে হাসপাতালে পৌঁছে দেওয়া হয়।

প্রসূতি মুক্তি পারভীন বলেন, ''আমি ট্রেনের যে সহযোগিতা পেয়েছি তাতে খুব ভালো লাগছে। ট্রেনের মধ্যে থাকা নারী যাত্রীরা আমাকে বেশ সহযোগিতা করেছেন। ট্রেনের স্টাফরাও সহযোগিতা করেছেন। তাছাড়া আমার মেয়ের নাম ভারত-বাংলাদেশ মৈত্রী ট্রেনের নামে 'মিতালী' রাখা হয়েছে। এটি আমার জন্য বড় একটি পাওয়া।

এ ব্যাপারে জানতে চাইলে স্টেশন সুপারিনটেনডেন্ট এবিএম জিয়াউর রহমান বলেন, 'প্রসূতি ও নবজাতককে নিরাপদে ট্রেন থেকে নামিয়ে হাসপাতালে পৌঁছে দেওয়া যায়- এটা নিশ্চিতে সহযোগিতা করেছি আমরা। এজন্য দ্রুতযান এক্সপ্রেস ট্রেন নির্ধারিত সময়ের ১৬ মিনিট পর দিনাজপুর স্টেশন ছেড়ে যায়। বিষয়টি বাংলাদেশ রেলওয়ে লালমনিরহাট বিভাগীয় ব্যবস্থাপক শাহী সুফি নুর মোহাম্মদকে জানানো হলে তিনি বাংলাদেশের চিলাহাটি ও ভারতের হলদিবাড়ির মধ্যে চলাচলকারী মিতালী ট্রেনের নামে নবজাতকের নাম রাখতে বলেন।

দিনাজপুর ২৫০ শয্যা বিশিষ্ট জেনারেল হাসাপাতালের আবাসিক চিকিৎসক ডা. পারভেজ সোহেল রানা জানান, প্রসূতি মুক্তি পারভীন ও নবজাতককে গাইনী ওয়ার্ডে ভর্তি করা হয়েছে। মা ও নবজাতক সুস্থ রয়েছে। রোববার তাদের হাসাপাতাল থেকে ছাড়পত্র দেওয়া হতে পারে।

কোন মন্তব্য নেই