× প্রচ্ছদ পাবনা-৪ উপনির্বাচন ঈশ্বরদী পাবনা জাতীয় রাজনীতি আন্তর্জাতিক শিক্ষাজ্ঞন বিনোদন খেলাধূলা বিজ্ঞান-প্রযুক্তি নির্বাচন কলাম ছবি ভিডিও রূপপুর এনপিপি
Smiley face করোনা ঈশ্বরদী পাবনা বাংলাদেশ আন্তর্জাতিক খেলা প্রযুক্তি বিনোদন শিক্ষা



ঈশ্বরদীতে জেলার সর্বোচ্চ করোনা আক্রান্ত

সম্প্রতি ঈশ্বরদী বাজার থেকে তোলা ঈদ মার্কেটের ভিড়ের অবস্থা। ছবি- ইতিহাস টুয়েন্টিফোর।

ইতিহাস টুয়েন্টিফোর প্রতিবেদক-

দেশের অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ উপজেলা পাবনা জেলার ঈশ্বরদীতে সর্বোচ্চ করােনা রোগী শনাক্ত হয়েছে। বিগত ১৫ দিনে ঈশ্বরদীতে মোট ২১৯ জন করােনা রোগী শনাক্ত হয়েছেন। ইতােমধ্যে এক নারীসহ করােনা আক্রান্ত ৪ জনের মৃত্যুর খবর জানা গেছে।  আক্রান্ত রােগী বর্তমানে আইসােলেশনে রয়েছেন বলে জানিয়েছেন ঈশ্বরদী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা: আসমা খান। 

পাবনা জেলা সিভিল সার্জন ডা: আব্দুল মােমেন জানান, সারা দেশের মতাে জেলায়ও করােনা রােগীর সংখ্যা বৃদ্ধি পেয়েছে। তবে জেলার মধ্যে ঈশ্বরদীতে আক্রান্তের সংখ্যা সবচেয়ে বেশী বলে জানান তিনি।

ঈশ্বরদী হাসপাতাল থেকে প্রাপ্ত তথ্যে জানা যায়, গত ১৫ দিনে ঈশ্বরদী হাসপাতালের মাধ্যমে করােনা পরীক্ষায় ১৭ জনের পজিটিভ রিপাের্ট এসেছে। এছাড়া রূপপুর পারমানবিক বিদ্যুৎ কেন্দ্র এলাকায় বেসরকারীভবে নমুনা পরীক্ষায় ২০২ জনের করােনা সনাক্ত হয়েছে। ওই এলাকায় নমুনা পরীক্ষার জন্য ভাসমান বেসরকারি ৬টি প্রতিষ্ঠান রয়েছে। এদের মধ্যে ফেমাস স্পেশালাইজড এবং বিএমএফআর থেকেই ২০২ জনের করােনা সনাক্তের রিপাের্ট হাসপাতাল কর্তৃপক্ষের কাছে রয়েছে।

রূপপুর পারমানবিক প্রকল্পের কর্মরতদের জন্য দ্রুত করােনা পরীক্ষার জন্য এখন বেসরকারিভাবে ৬টি ভ্রাম্যমান ল্যাব কাজ করছে। এদের রিপাের্ট ১২ ঘন্টার মধ্যেই পাওয়া যাচ্ছে। কিন্তু সাধারণ মানুষের জন্য সরকারিভাবে হাসপাতলে করােনা পরীক্ষার হার খুবই নগণ্য। কারণ হাসপাতালে নমুনা দিলে সিরাজগঞ্জ থেকে রিপাের্ট পেতে সময় লাগে ৮-১০ দিন। তবে এখন ৪-৫ দিনের মধ্যে পাওয়া যাচ্ছে বলে স্বাস্থ্য কর্মকর্তা জানিয়েছেন। 

প্রসঙ্গত পাবনা জেলায় পিসিআর ল্যাব এখনও বসেনি। ফলে করােনার নমুনা পরীক্ষার রিপাের্ট পেতে দীর্ঘসময় অপেক্ষা করতে হচ্ছে। যার ফলে দ্রুত করোনা রোগী শনাক্ত করা যাচ্ছেনা।

গত শনিবার (১ মে) থেকে ঈশ্বরদী বাজারে ঈদকে সামনে রেখে শপিংমলগুলোতে উপচে পড়া ভিড় হচ্ছে। কোথাও কোন স্বাস্থ্যবিধির বালাই নেই। ক্রেতা-বিক্রেতা কেউ মানছে না স্বাস্থ্যবিধি, সামাজিক দুরত্ব মেনে বাজার করার নির্দেশনা মানতে দেখা যায়নি কাউকে। গাদাগাদি করে মার্কেটগুলোতে ঈদের বাজার করতে আসছে মানুষ। শিশুদের নিয়ে মার্কেটে আসছে, তাদের মুখেও মাস্ক নেই। যা চরম স্বাস্থ্যঝুকিতে ফেলেছে। এমন অসচেতনতা ঈশ্বরদীতে করোনার ব্যাপক সংক্রমণের কারণ হতে পারে বলে মনে করছেন স্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞরা। 

কোন মন্তব্য নেই