ঢাকারবিবার , ৮ আগস্ট ২০২১

পাবনা প্রেসক্লাব সম্পাদক সৈকত’র বিরুদ্ধে সাবেক এমপির মামলা, প্রতিবাদে মানববন্ধন

অপুর্ব চৌধুরী
আগস্ট ৮, ২০২১ ১:৪২ পূর্বাহ্ণ
Link Copied!

পাবনা প্রেসক্লাব সম্পাদক সৈকত আফরোজ আসাদের বিরুদ্ধে সাবেক এমপির ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে মামলা দায়েরের প্রতিবাদে মানববন্ধন করেছেন পাবনার গণমাধ্যমকর্মীরা। আজ শনিবার দুপুরে শহরের আব্দুল হামিদ সড়কে ঘন্টাব্যাপী এই মানববন্ধনে শতাধিক সাংবাদকর্মী ছাড়াও বিভিন্ন সামাজিক সাংস্কৃতকি সংগঠনের প্রতিনিধিরা অংশ নেন।

মানববন্ধনে বক্তারা বলেন, খন্দকার আজিজুল হক এক সময় জাসদ করতেন। পরবর্তী সময়ে আওয়ামী লীগে যোগ দিয়ে বিনা ভোটে সাংসদ নির্বাচিত হন। নির্বাচিত হওয়ার পর তাঁর বিরুদ্ধে নদী দখল করে মার্কেট নির্মাণ, সরকারি সম্পত্তি দখলসহ বিভিন্ন অভিযোগ ওঠে। এসব বিষয়ে সংবাদ প্রকাশ হওয়ায় তিনি ক্ষিপ্ত হন। ধারাবাহিক এই ক্ষিপ্ততার অংশ হিসেবে তিনি ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনের অপব্যবহার করে হয়রানিমূলক মামলাটি করেছেন। সাংবাদিকদের এ ধরনের হয়রানি বন্ধ করতে এই কালো আইন দ্রুত বাতিল প্রয়োজন। সাংবাদিকতার নীতি মেনে অভিযুক্তের বক্তব্য নিয়ে সংবাদ প্রকাশের পরেও পাবনা-২ আসনের সাবেক এমপি আজিজুল হক আরজু ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনের অপব্যবহার করে সাংবাদিক সৈকতের বিরুদ্ধে সম্প্রতি সাইবার ক্রাইম ট্রাইব্যুনালে মামলা দায়ের করেছেন। সংবাদকর্মীদের কন্ঠরোধ করতেই তিনি এ মামলা দায়ের করেছেন বলে মন্তব্য করেন বক্তারা। অবিলম্বে এই মামলাটি প্রত্যাহার করা না হলে কঠোর কর্মসূচী দেয়া হবে বলে জানান সাংবাদিক নেতৃবৃন্ধ।

পাবনা প্রেসক্লাবের ক্লাবের সাহিত্য সাংস্কৃতি সম্পাদক ইয়াদ আলী মৃধা পাভেলের সঞ্চালনায় এ সময় বক্তব্য দেন, পাবনা প্রেসক্লাব সভাপতি এবিএম ফজলুর রহমান, পাবনা সংবাদপত্র পরিষদ সভাপতি আব্দুল মতীন খান, সাধারন সম্পাদক শহিদুর রহমান শহীদ, পাবনা রিপোর্টার্স ইউনিটির সম্পাদক কাজী বাবলা, সিনি: সাংবাদিক ও বাংলাদেশ বেতারের সুশীল তরফদার, মাছরাঙা টিভির উত্তরাঞ্চলীয় ব্যুরো প্রধান উৎপল মির্জা, বাংলাভিশনের আখিনুর ইসলাম রেমন, ফোকাস বাংলার কামাল আহমেদ সিদ্দিকী, দৈনিক ইত্তেফাকের রুমী খোন্দকার, দৈনিক জনকন্ঠের কৃষ্ণ ভেমিক, পাবিপ্রবি শিক্ষক সমিতির সাবেক সভাপতি ডা. আওয়াল কবির জয় প্রমুখ।

সাংবাদিক উৎপল মির্জা বলেন, মামলার বাদী সাবেক সংসদ সদস্য আজিজুল হক আরজু রাজনৈতিক পরিচয় ব্যবহার করে সরকারী জমি দখল, চরমপন্থিদের মদদ দিয়ে নগরবাড়ি ঘাট এলাকায় চাঁদাবাজীর নেপথ্যেও নায়ক। তার বিরুদ্ধে যে কোন ধরনের সংবাদ করতে গেলেই তিনি সংশ্লিষ্ট গণমাধ্যমের সাংবাদিকদের সাথে অশোভন আচরণ করেন। অনৈতিক প্রস্তাবের মাধ্যমে সংবাদ বন্ধ করার চেষ্টা করেন, তাতে রাজি না হলে মামলা হামলারও ভয় দেখান। তিনি অবিলম্বে মামলা প্রত্যাহার না করলে তার সকল অপকর্ম গণমাধ্যমে তুলে ধরা হবে ধারাবাহিক ভাবে।

পাবনা প্রেসক্লাবের সহ সম্পাদক ডেইলি ষ্টার প্রতিনিধি তপু আহমেদ বলেন, সম্প্রতিকালে দূর্বৃত্তরা ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনকে গণমাধ্যমকর্মীদেও হেনস্থা করতে হাতিয়ার হিসেবে ব্যবহার করছেন। সাহকর্মী সাংবাদিকের বিরুদ্ধে সাবেক এমপির মামলা সেই ধারাবাহিকতারই নগ্ন বহি:প্রকাশ।

দৈনিক প্রথম আলো প্রতিনিধি সরোয়ার উল্লাস বলেন, ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনের অপব্যবহার করে অসত্য অভিযোগ এনে পাবনা প্রেসক্লাব সম্পাদক সৈকত আফরোজ আসাদ’র বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করেছেন। এতে স্বাধীন সাংবাদিকতা ও মত প্রকাশের স্বাধিনতার বিরুদ্ধে তিনি অবস্থান নিয়েছেন বলে আমরা মনে করি।

পাবনা সংবাদপত্র পরিষদ সভাপতি আব্দুল মতীন খান বলেন, মামলার বাদীর সাথে আমরা কথা বলার চেষ্টা করেছি, তিনি আমাদের সাথেও ওদ্ধত্যপূর্ণ আচরণ করেছেন। আমরা আশা করছি তার শুভ বুদ্ধির উদয় হবে এবং মামলা প্রত্যাহার করে নিবেন। তা হলে জেলার সকল সংবাদকর্মীদের সাথে নিয়ে ধারাবাহিক ভাবে কর্মসূচী পালন করা হবে।

পাবনা প্রেসক্লাব সভাপতি এবিএম ফজলুর রহমান বলেন, মামলা প্রত্যাহার দাবিতে রবিবার প্রধানমন্ত্রী, স্বরাষ্ট্র ও তথ্যমন্ত্রীর বরাবর জেলা প্রশাসকের মাধ্যমে স্মারক লিপি পেশ, সোমবার প্রতিবাদ সমাবেশ, মঙ্গলবার স্থানীয় সংবাদপত্রে জায়গা খালি রেখে প্রতিবাদের ঘোষণা দেন। এর পরেও মামলা প্রত্যাহার না করা হলে জেলার কর্মরত সকল সাংবিাদিকদের নিয়ে বৃহত্তর আন্দোলনের ঘোষণা দেয়া হবে বলেও জানান তিনি।

প্রসঙ্গত, গত ৮ মার্চ জেলার বেড়া উপজেলার নাটিয়াবাড়িতে সাবেক এমপি আরজুর ভাতিজা পরিচয় দেয়া এক ব্যাক্তির বাড়িতে অস্ত্রের কারখানার সন্ধান পাওয়ার কথা জানান পুলিশ। এ নিয়ে সংবাদ প্রকাশ হলে ক্ষুব্ধ হয়ে তিনি এ মামলাটি দায়ের করেন।

error: Please Stop!!You can not copy this content becuase this site content is under protection. Thank You Itihas24 Developer Team