দেশে জ্বালানি তেলের নিরবচ্ছিন্ন সরবরাহ অব্যাহত থাকবেঃ প্রধানমন্ত্রী » Itihas24.com
ঈশ্বরদী২৯শে মে, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ
ঈশ্বরদীর সবশেষ নিউজ । ইতিহাস টুয়েন্টিফোর
আজকের সর্বশেষ সবখবর

দেশে জ্বালানি তেলের নিরবচ্ছিন্ন সরবরাহ অব্যাহত থাকবেঃ প্রধানমন্ত্রী

বিশেষ প্রতিবেদক
আগস্ট ৩১, ২০২২ ৭:০৮ অপরাহ্ণ
Link Copied!

দেশে জ্বালানি তেলের নিরবচ্ছিন্ন সরবরাহ অব্যাহত থাকবে বলে জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

তিনি বলেন, ‘জ্বালানি তেলের চাহিদাপূরণ করা একটি চলমান প্রক্রিয়া। বিদেশ থেকে জ্বালানি তেল সংগ্রহের জন্য ছয় মাসভিত্তিক চুক্তি হয়। বর্তমান চুক্তির মেয়াদ ডিসেম্বর পর্যন্ত। মজুত জ্বালানি তেল দিয়ে ৩০-৩৫ দিনের চাহিদাপূরণ করা সম্ভব হবে। এসময়ের মধ্যে জ্বালানি তেল নিয়ে দুটি জাহাজ দেশে এসে পৌঁছাবে। অর্থাৎ নিরবচ্ছিন্নভাবে দেশে জ্বালানি তেল সরবরাহ অব্যাহত থাকবে।’

বুধবার (৩১ আগস্ট) জাতীয় সংসদে প্রধানমন্ত্রীর জন্য নির্ধারিত প্রশ্নোত্তর পর্বে নাটোর-১ আসনের সংসদ সদস্য মো. শহিদুল ইসলাম বকুলের প্রশ্নের জবাবে সংসদ নেতা এসব কথা বলেন।

জ্বালানি তেলের মজুতের তথ্য তুলে ধরে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘গত ১৬ আগস্ট পর্যন্ত দেশে জ্বালানি তেলের মজুতের পরিমাণ পরিশোধিত ছয় লাখ ২০ হাজার ১৪৮ মেট্রিক টন, অপরিশোধিত ৮১ হাজার ৮৪৬ মেট্রিক টন। মোট মজুত সাত লাখ এক হাজার ৯৯৪ মেট্রিক টন।’

তিনি বলেন, ‘বাংলাদেশ পেট্রোলিয়াম করপোরেশন (বিপিসি) দেশের চাহিদাপূরণের লক্ষ্যে পরিশোধিত জ্বালানি তেল হিসেবে ডিজেল, জেট ফুয়েল, অকটেন, ফার্নেস অয়েল ও মেরিন ফুয়েল এবং অপরিশোধিত জ্বালানি তেল হিসেবে অ্যারাবিয়ান লাইট ক্রুড ও মারবান ক্রুড অয়েল আমদানি করে।’

তেল আমদানি অব্যাহত রাখতে সরকারের পদক্ষেপ তুলে ধরে শেখ হাসিনা বলেন, ‘জ্বালানি তেল সরবরাহ অব্যাহত রাখার লক্ষ্যে চাহিদা বিবেচনায় চলতি (আগস্ট) মাসে প্রায় তিন লাখ ২৫ হাজার মেট্রিক টন ডিজেল, ৫০ হাজার মেট্রিক টন জেট ফুয়েল ও ৫০ হাজার মেট্রিক টন অকটেন ও সেপ্টেম্বরে প্রায় তিন লাখ মেট্রিক টন ডিজেল, ২০ হাজার মেট্রিক টন জেট ফুয়েল, ৫০ হাজার মেট্রিক টন ফার্নেস অয়েল ও ২৫ হাজার মেট্রিক টন অকটেন আমদানির সূচি চূড়ান্ত করা হয়েছে।’

সরকারপ্রধান বলেন, ‘বাংলাদেশ বিদ্যুৎ উন্নয়ন বোর্ডের (বিউবো) বর্ধিত চাহিদা বিবেচনায় আগস্টে আরও ২৫ হাজার মেট্রিক টন ফার্নেস অয়েল ও সেপ্টেম্বরে আরও ২৫ হাজার মেট্রিক টন ফার্নেস অয়েল ও এক লাখ ২০ হাজার মেট্রিক টন ডিজেল সরবরাহের জন্য সরবরাহকারী প্রতিষ্ঠানের কাছে প্রস্তাব পাঠানো হয়েছে। ইস্টার্ন রিফাইনারি লিমিটেডে প্রক্রিয়াকরণ ও পরিশোধনের মাধ্যমে পরিশোধিত জ্বালানি তেল উৎপাদনের জন্য আগস্টে প্রায় দুই লাখ মেট্রিক টন ও সেপ্টেম্বরে প্রায় এক লাখ মেট্রিক টন ক্রুড অয়েল আমদানি করা হবে। তাছাড়া দেশীয় উৎস হতে জ্বালানি তেল সংগ্রহ অব্যাহত রয়েছে।’

 

জ্বালানি সংকটের কারণ উল্লেখ করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘রাশিয়া-ইউক্রেন যুদ্ধের ফলে সৃষ্ট বৈশ্বিক পরিস্থিতির কারণে আন্তর্জাতিক বাজারে জ্বালানি তেলের মূল্য অস্বাভাবিকভাবে বৃদ্ধি পায়। জুলাইয়ে ক্রুড অয়েলের মূল্য ব্যারেলপ্রতি সর্বোচ্চ ১১৭ দশমিক ৪৮ মার্কিন ডলার অতিক্রম করে।’

প্রতিবেশী দেশ ভারতের সঙ্গে জ্বালানি তেলের দামের পার্থক্য তুলে ধরে সংসদ নেতা বলেন, ‘বিশ্ববাজারে জ্বালানি তেলের ঊর্ধ্বগতির কারণে পার্শ্ববর্তী দেশসহ বিভিন্ন দেশে নিয়মিত তেলের মূল্য সমন্বয় করে। ইউক্রেন-রাশিয়া যুদ্ধ পরিস্থিতির কারণে প্রতিবেশী দেশ ভারতের কলকাতায় গত ৬ এপ্রিল ডিজেলের মূল্য লিটারপ্রতি সর্বোচ্চ ৯৯ দশমিক ৮৩ রুপি ও পেট্রলের মূল্য সর্বোচ্চ ১১৫ দশমিক ১২ রুপি নির্ধারণ করা হয়।’

‘পরে শুল্ক হ্রাসের মাধ্যমে ২২ মে কলকাতায় ডিজেল লিটারপ্রতি ৯২ দশমিক ৭৬ রুপি ও পেট্রল লিটারপ্রতি ১০৬ দশমিক শূন্য ৩ রুপি নির্ধারণ করা হয়, যা এখনো বিদ্যমান। গত ৪ আগস্টের তথ্য অনুযায়ী, কলকাতায় ডিজেল লিটারপ্রতি ৯২ দশমিক ৭৬ রুপি, যা বাংলাদেশি মুদ্রায় ১১৭ দশমিক ৩৪ টাকা (১ রুপি সমান ১ দশমিক ২৬৫ টাকা) বিক্রয় হচ্ছিল। ওই সময়ের হিসাব অনুযায়ী বাংলাদেশের চেয়ে লিটারপ্রতি ৩৭ দশমিক ৩৪ টাকা বেশি দামে কলকাতায় ডিজেল বিক্রি হচ্ছিল। ওইদিন কলকাতায় পেট্রলের দাম ছিল ১০৬ দশমিক শূন্য ৩ রুপি, যা বাংলাদেশি টাকায় ১৩৪ দশমিক ১৩ টাকা। ৪ আগস্টের হিসাবে বাংলাদেশের চেয়ে কলকাতায় ৪৮ দশমিক ১৩ টাকা বেশি দামে পেট্রল বিক্রি হচ্ছিল’ বলেও উল্লেখ করেন প্রধানমন্ত্রী।

লোডশেডিং করে সংকট উত্তরণের চেষ্টা
এদিকে, জাতীয় পার্টির সংসদ সদস্য সৈয়দ আবু হোসে বাবলার এক প্রশ্নের জবাবে সরকারপ্রধান বলেন, ‘দেশের বিদ্যুতের চাহিদা অনুযায়ী- উৎপাদনের সক্ষমতা রয়েছে। এদিক থেকে দেশে কোনো বিদ্যুৎ সংকট নেই। বৈশ্বিক চলমান জ্বালানি সংকটের কারণে বাংলাদেশ বিদ্যুতের সাশ্রয়ী ব্যবহার ও পরিকল্পিত লোডশেডিং করে সংকট উত্তরণের চেষ্টা চালাচ্ছে।’

প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘বিদ্যুৎ উৎপাদন সক্ষমতা থাকা সত্ত্বেও জ্বালানি সাশ্রয়ের লক্ষ্যে বিভিন্ন এলাকায় ক্ষেত্র বিশেষে এক হাজার মেগাওয়াট থেকে দুই হাজার মেগাওয়াট পর্যন্ত বিদ্যুৎ পরিকল্পিত লোডশেডিং করা হচ্ছে। পরিকল্পিত এ লোডশেডিং শিডিউল বিভিন্ন মাধ্যমে গ্রাহকদের নিয়মিতভাবে আগেই অবহিত করা হচ্ছে। বর্তমানে একদিকে এলাকাভিত্তিক পরিকল্পিত লোডশেডিংসহ হলিডে স্ট্যাগারিংয়ের মাধ্যমে বিদ্যুৎ উৎপাদন ও চাহিদার মধ্যে ভারসাম্য রক্ষা করা হচ্ছে। অন্যদিকে সাশ্রয়ী বিদ্যুৎ ব্যবহার নিশ্চিতে রাত ৮টার মধ্যে শপিংমল, দোকানপাট বন্ধ করা, এসির তাপমাত্রা ২৫ ডিগ্রির ওপরে রাখা, রুটিন অনুযায়ী শিল্প প্রতিষ্ঠানের সাপ্তাহিক ছুটি মেনে চলা, বিদ্যুৎ সাশ্রয়ী যন্ত্রপাতি ব্যবহার করা ও আলোকসজ্জা পরিহারে গুরুত্বারোপ করা হচ্ছে।’

শেখ হাসিনা বলেন, ‘সরকার জ্বালানি বহুমুখীকরণের মাধ্যমে নবায়নযোগ্য জ্বালানিসহ নতুন নতুন বিদ্যুৎকেন্দ্র স্থাপন করছে। তাছাড়া বর্তমান বৈশ্বিক সংকট মোকাবিলায় লোডশেডিং সীমিত রাখতে সরকার বিভিন্ন পদক্ষেপ গ্রহণ করেছে। আশা করা যাচ্ছে, পরিকল্পনা অনুযায়ী কয়লাভিত্তিক নতুন বিদ্যুৎকেন্দ্রসমূহের উৎপাদিত বিদ্যুৎ জাতীয় গ্রিডে যুক্ত হলে এবং সাশ্রয়ী বিদ্যুৎ ব্যবহার নিশ্চিত করা গেলে অচিরেই সাময়িক লোডশেডিং থেকে উত্তরণ সম্ভব হবে।

বিজ্ঞাপন

BONOLOTA IT POS ads