ঈশ্বরদীর সবশেষ নিউজ । ইতিহাস টুয়েন্টিফোর
ঢাকাবুধবার , ১৯ অক্টোবর ২০২২

পরমানুঅস্ত্র , যুদ্ধে ব্যবহার রোধ প্রাসঙ্গিক বিশ্বশান্তি

 হাক্কি মাহমুল হক
অক্টোবর ১৯, ২০২২ ১১:৫০ পূর্বাহ্ণ
Link Copied!

বিশ্ব রাজনৈতিক পরিস্থিতি এখন চরম ক্লান্তি লগ্নে বিপদ সীমা রেখায় অতিক্রান্ত । আবহাওয়া বার্তার মতই যেন ১০ নং বিপদ সংকেত । বিশ্বের সচেতন নাগরিক মাত্রই অবগত যে ৮ মাস হতে চলল ইউক্রেন রাশিয়া যুদ্ধ । যে যুদ্ধ আজ এতই উত্তর যে , একাবিংশ শতকে বিশ্ব মানব সভ্যতা আজ হুমকির মুখে ।

বিশ্বের পরাশক্তিদের মধ্যে পরস্পরে শক্তি প্রদর্শন ও আধিপত্য বিস্তার এবং নিজ অস্তিত্ত রক্ষায় পারমানবিক অস্ত্র ব্যবহারে হুমতি ও ঘোষণা দিতে কেউ বিব্রত হচ্ছেনা । এমনই এক সংকটপূর্ণ পরিস্থিতি মোকাবেলা ও উত্তোরনের পথ কি সেটা ভাবতে হবে বিশ্বের শক্তিধর রাষ্ট্রনায়কদের ।

যদি কোন রাষ্ট্র নায়ক মনে করে এটা রাশিয়া ● উঠোনের যুদ্ধ কিবা যুক্তরাষ্ট্র বনাম রাশিয়ার যুদ্ধ অথবা চীন – তাইওয়ান উত্তেজনাকে কেন্দ্রকরে চীন ও যুক্তরাষ্ট্রের মধ্যে স্নায়ুযুদ্ধ এমন দুটি পরাশক্তির মধ্যে তৃতীয় পক্ষের স্বার্থ ও সমর্থনকে কেন্দ্র করে হয়েছে । যা পরস্পর দ্বন্দ্বে দুটি পরাশক্তির মধ্যে পক্ষে ও বিপক্ষে দুটি বলয়ের সৃষ্টি হয়েছে । একটি পর্যায়ে সামরিক শক্তির সহযোগিতার পাশাপাশি তখন সেনা শক্তি দিয়ে সহযোগিতা করে যুদ্ধে জড়িয়ে যায় । এভাবে লক্ষ্য করা যাচ্ছে চীন রাশিয়ার পক্ষে সমর্থন দিয়ে যাচ্ছে । যদিও ইউরোপ ও যুক্তরাষ্ট্রে চীনের পণ্যের বাজার আছে ভেবেই হয়তো এখন ও চাঁন রাশিয়াকে সামরিক শক্তি দিয়ে সহযোগিতা করে নাই ।

কিন্তু করতে কতক্ষণ । রাষ্ট্রীয় নীতি নির্ধারণ এবং পররাষ্ট্র বিষয়ে ঘটনা পাক্ষিক ব্যাপারে সিদ্ধান্ত মুহূর্তের মধ্যে রদবদল হয়ে যেতে পারে । গত আগষ্টে মার্কিন প্রতিনিধি ডেপুটি স্পিকার ন্যাগি প্যাগোসির ভাইওয়ান সফর , যুক্তরাষ্ট্রের রনতরি , তাইওয়ানের কাছে যুক্তরাষ্ট্রের অস্ত্র বিক্রি । এসবকে কেন্দ্র করে চীনকে নতুন করে ভাবতে হচ্ছে । এসব উত্তেজনার কারণে সম্প্রতি রাশিয়া , চীন বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়েছে । কেবল হচ্ছেনা বিশ্বের অন্যান্য রাষ্ট্রগুলো মারা যুদ্ধ দেখতে চায় না এবং যে কোন মূল্যে পরমাণু অস্ত্র যুদ্ধে ব্যবহার করতে হবে । মনে করুন যদি কখনও বিশ্বযুদ্ধ শুরু হয়ে যায় তখন কি নিরপেক্ষ রাষ্ট্রগুলো দর্শকের ভূমিকায় থাকবে ।

হয়তো কেউ থাকৰে , কেউ থাকবেনা । কিন্তু প্রকৃত কথা এই যে , যারা নিরাপত্তায় থাকবেন না । কারণ পরমাণু অস্ত্র যুদ্ধ বেধে গেলে এমন অবস্থার সৃষ্টি হবে যা রোধ করার কোন কিছুই থাকবে না । অর্থাৎ এই মাৰাক যে পরস্পরের প্রতি এই অস্ত্র ব্যবহার হলে কোন পক্ষের অস্তিত্বই থাকবে না । অর্থাৎ জয়পরাজয় বলে ঘোষণা দেয়ার মাথা তুলতেও কেউ পারবে না । ইতিহাসের বিগত দ্বিতীয় বিশ্ব যুদ্ধে জাপানের হিরোসীমা ও নাগগাসাকিতে ব্যবহার হয়েছিল যে পরমাণু হাজার হাজারহন ক্ষমতা সম্পন্ন ছোট বড় অনেক বোমা তৈরি হয়েছে বর্তমানে । দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের সময় মিত্র শক্তির নারী মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট রুজভেল্ট এর আমলে মার্কিন পদার্থ বিজ্ঞানী এনারিকো ফার্মী ও তার সহযোগি বৈজ্ঞানিক আইনস্টাইনের সহযোগিতায় বিজ্ঞানী জার্মী আমেরিকার শিকাগো শহরে অবস্থিত পারমানবিক গবেষণাগারে প্রথম পারমানবিক বোমা তৈরি করেন ।

যার দুটি বোমায় লীন নাতসী সমর্থক জাপান হওয়ার কারনে সে দিন জাপানে নিক্ষিপ্ত হয়েছিল এই বোমা । যার পরিনাম হানি জীব বৈচিত্রের খবতেহাসের কলঙ্কের স্মৃতি বয়ে আছে । তবে সেলিম যুক্তরাষ্ট্র একাই পারমানবিক অস্ত্র চুল্লির অধিকারী ছিল । কিন্তু এখন বর্তমানে অনেক শক্তিধারী দেশ পারমানবিক অস্ত্রের অধিকারী বিশেষ করে জাতিসংঘের ৫ টি ভেটো প্রদানকারী দেশ ছাড়াও এশিয়া ইউরোপ আমেরিকা মহাদেশের অনেক দেশই এই ভয়ঙ্কর অস্ত্রের অধিকারী হয়ে । সাথের মূল লবছেই কোন ভালো খবর নেই । রাশিয়া চীনের সঙ্গে পশ্চিমাদেশগুলো একটি বাজে সম্পর্ক তৈরি করে পরিস্থিতি জটিল করে তুলেছে ।

তার এই বক্তব্য বিশ্বের রাজনৈতিক বিশ্লেষক ও শক্তিকামী মানুষ মনে করে তার এই বক্তব্য যুক্তি সংগত । কেন আজ এই রাশিয়ার এই তীব্র প্রতিবাদ ও নিন্দা জানিয়েছে । নিরাপত্তা পরিষদে এই লম্বাণে ভোট দেয় চীন । যুক্তরাষ্ট্র রাশিয়ার এই কথিত ডোটিতে জাটকাবাজি বলে মন্তব্য করে । পাশাপাশি তুরস্ক রাশিয়ার এই সিদ্ধান্তকে প্রত্যাখ্যান করেছে । আংকারা বলেন নক্ষ্যে এই ষ্ঠিত আইনের প্রতিষ্ঠিত নীতি । ২০১৪ সালে রাশিয়া কর্তৃক ক্রিমিয়া দখলকের স্বীকৃতি । দেয় নাই তুরস্ক । কবে তুরস্ক ইউক্রেন আর রাশিয়ার মধ্যে যাতে যুদ্ধ বন্ধ হয় সেই উদ্যোগ নিয়েছিল । এছাড়া রাশিয়া ইউক্রেনের চুক্তি করা দেশগুলোতে দীর্ঘদিন বন্দরে খান্য মালামাল আটকে থাকায় সে বাপারে জাতি সংঘের উদ্যোগে রপ্তানি খাদ্য সামগ্রী পাঠানোর

error: Please Stop!!You can not copy this content becuase this site content is under protection. Thank You Itihas24 Developer Team